নয়াদিল্লি: ফের নির্ভয়া মামলায় ফাঁসির দিন ঘোষণা করল আদালত। ২০ মার্চ নির্ভয়া মামলায় দোষীদের ফাঁসির দিন ধার্য করল দিল্লির পাটিয়ালা হাউস কোর্ট। ওই দিন ভোর ৫টায় ফাঁসি হবে ৪ দোষীর। এর আগে ৩ মার্চ ফাঁসির দিন ঘোষণা হলেও পরে তা পিছিয়ে যায়। দোষী পবন গুপ্তা রাষ্ট্রপতির কাছে প্রাণভিক্ষার আবেদন জানায়। রাষ্ট্রপতি পবনের প্রাণভিক্ষার আবেদন খারিজ করে দেন।

এর আগে ২ মার্চ নির্ভয়ার খুনিদের ফাঁসির উপর স্থগিতাদেশ দেয় দিল্লির পাতিয়ালা হাউস কোর্ট। ফলে মঙ্গলবার ৩ মার্চ নির্ভয়া কাণ্ডে চার ধর্ষকদের সাজা পিছিয়ে যায়। এবার টানা তিন বার ফাঁসির সাজা ঘোষণার পর তা রদ হয়ে যাওয়ার পর ফের একবার নির্ভয়ার খুনিদের ফাঁসির সাজার দিন ঘোষণা করল আদালত।

এর আগে ২ মার্চ ফাঁসি স্থগিতাদেশের আর্জি খারিজ করতে গিয়ে আসামি পবন গুপ্তার আইনজীবী এ.পি সিং’কে একহাত নেয় আদালত। তাঁকে তীব্র কটাক্ষ করে আদালত বলে, “আপনারা আগুন নিয়ে খেলছেন। আপনাদের আরও সতর্কও হওয়া উচিত। একটা ভুল সিদ্ধান্ত, আর আপনারা জানেন তার পরিণাম কী।” অন্যদিকে আদালতের সিদ্ধান্তের পর নির্ভয়ার পরিবারও হতাশ হয়ে পড়ে। আদালতের সময় নষ্ট করা হচ্ছে বলে অভিযোগ করেন নির্ভয়ার মা।

প্রসঙ্গত, এর পরপর দু’বার ফাঁসির সাজার দিন ঘোষণা হলেও পরে তা পিছিয়ে যাওয়ায় শেষমেশ ৩ মার্চ নতুন করে ফাঁসির নির্দেশ দিয়েছিল আদালত। সেই দিনও পিছিয়ে দেওয়ার জন্য সুপ্রিম কোর্টে কিউরেটিভ পিটিশন দাখিল করে দোষী পবন গুপ্তা। প্রাণদণ্ডের সাজা কমিয়ে যাবজ্জীবন করার আবেদন জানিয়েছিল পবন। শীর্ষ আদালত পবনের সেই আবেদন খারিজ করে দেয়। পরে রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দও পবনের আবেদন খারিজ করে দেন।

একইভাবে এর আগে সুপ্রিম কোর্টে কিউরেটিভ পিটিশন দাখিল করেছিল নির্ভয়া কাণ্ডে দোষী মুকেশ সিং, বিনয় শর্মা ও অক্ষয় ঠাকুর। ওই তিন দোষীর আবেদনও খারিজ করে দিয়েছিল দেশের সর্বোচ্চ আদালত।

পরপর পিছিয়েছে নির্ভয়া মামলায় দোষীদের ফাঁসির দিন। কখনও উচ্চ আদালতে কিউরেটিভ পিটিশন দাখিল, কখনওবা প্রাণভিক্ষার আবেদন নিয়ে রাষ্ট্রপতির কাছে আর্জি। বারবার আইনের ফাঁকের সুযোগ নিয়ে ফাঁসির দিন পিছিয়েছে দোষীরা। এক এক করে প্রাণভিক্ষার আবেদন করায় বাধ্য হয়ে আদালতও দোষীদের ফাঁসির দিন পিছিয়ে দিতে বাধ্য হয়েছে।

তবে এবার আর ফাঁসির দিন সম্ভবত বদলাবে না। নির্ভয়া মামলায় সব দোষীরই প্রাণভিক্ষার আবেদন নাকচ করেছেন সুপ্রিম কোর্ট ও রাষ্ট্রপতি। সব কিছু ঠিকঠাক চললে আগামী ২০ মার্চ ভোর ৫টায় তিহাড় জেলেই নির্ভয়া মামলায় দোষী মুকেশ সিং, অক্ষয় ঠাকুর, বিনয় শর্মা, পবন গুপ্তার ফাঁসি হবে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

জীবে প্রেম কি আদৌ থাকছে? কথা বলবেন বন্যপ্রাণ বিশেষজ্ঞ অর্ক সরকার I।