মস্কো: করোনাভাইরাসের রুশ টিকা পেতে হই হই করে লাইন দেওয়া শুরু হয়েছে। বিভিন্ন দেশের সরকার ইতিমধ্যেই স্পুটনিক ভি টিকা বুকিং করে স্বস্তিতে। অথচ এর বিরাট আকারে কার্যকারিতা নিয়েই এখনও সংশয় কাটেনি বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (হু)।

হু যতই সতর্ক করুক এই মুহূর্তে বিশ্ব তাকিয়ে রাশিয়ার দাবি করা স্পুটনিক ভি টিকার দিকেই। কারণ, রুশ সরকার জানিয়েছে, এই টিকা করোনার প্রথম কার্যকর টিকা।

মঙ্গলবার প্রেেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন ভ্যাকসিন আবিষ্কারে সাফল্য ঘোষণা করার পর এরই মধ্যে ২০টি দেশ আগাম বুকিং করেছে। রুশ সংবাদ সংস্থা তাস জানাচ্ছে এই খবর। বলা হয়েছে, এর পরিমাণ এক বিলিয়ন অর্থাৎ ১০০ কোটি ডোজ।

রাশিয়ায় প্রতিরক্ষা মন্ত্রকের তত্ত্বাবধানে করোনাভাইরাসের টিকা স্পুটনিক ভি তৈরি করছে গ্যামেলিয়া রিসার্চ ইনস্টিটিউট অব এপিডেমোলজি অ্যান্ড মাইক্রোবায়োলজি। এর নামকরণ করা হয়েছে সোভিয়েত জমানার প্রথম কৃত্রিম উপগ্রহ স্পুটনিক-১ কে সম্মান জানিয়ে।

মঙ্গলবার পুতিনের ঘোষণার পরে বিভিন্ন দেশ টিকার কার্যকারিতা নিয়ে সন্দেহ জানায়। এত দ্রুত টিকা বের করার পদ্ধতিতে সঠিকভাবে পরীক্ষা চালানো হয়নি বলেও অভিযোগ উঠছে। তবে সেসব উড়িয়ে দিয়েছে রুশ সরকার।

রাশিয়ান ডাইরেক্ট ইনভেস্টমেন্ট ফান্ডের প্রধান কিরিল দিমিত্রিয়েভ জানিয়েছেন, গ্যামেলেয়া ইনস্টিটিউটের তৈরি এই টিকা নিতে ২০টি দেশ থেকে ১০০ কোটির বেশি ডোজের আবেদন জমা পড়েছে। আরও অনেক দেশ আগ্রহ দেখাচ্ছে। তিনি বলেন, পাঁচটি দেশে এই স্পুটনিক ভি টিকা তৈরি হবে। বছরে ৫০ কোটি ডোজ উৎপাদন হবে।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী মিখাইল মুরাস্কোকে টিকার কার্যকারিতা সম্পর্কে বিস্তারিত রিপোর্ট প্রকাশ করার কথা জান্য়েছেন। রুশ প্রেসিডেন্ট পুতিনের নির্দেশ, দেশের অন্তত ৬০ শতাংশ নাগরিকের শরীরে করোনা টিকা দিতে হবে।

তাস সংবাদ সংস্থার খবর, এই বছর অন্তত চার কোটি টিকা বাজারে আনার পরিকল্পনা রাশিয়ার। আগামী অক্টোবর থেকে টিকা দেওয়া হবে গণহারে। যারা করোনার বিরুদ্ধে সামনের সারিতে লড়াই করছেন, তাদেরই প্রথমে এই টিকা দেওয়া হবে।

পপ্রশ্ন অনেক: একাদশ পর্ব

লকডাউনে গৃহবন্দি শিশুরা। অভিভাবকদের জন্য টিপস দিচ্ছেন মনোরোগ বিশেষজ্ঞ।