মুম্বই: ১১ জন আদিবাসী পড়ুয়াকে যৌন নির্যাতন করার অপরাধে সাতারা জেলার পঞ্চগনি এলাকার এক স্কুলের দুই কর্মীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তবে স্কুল কর্তৃপক্ষের তরফ থেকে এই বিষয়ে বিস্তারিত কিছু জানানো হয়নি।

জানা গিয়েছে নিগৃহীত পড়ুয়াদের বয়স ১০ থেকে ১৩ বছরের মধ্যে। তাদের সকলকেই স্কুল পালাতে দেখে স্থানীয়দের যথেষ্ট সন্দেহ হয়। ওই পড়ুয়াদের নিয়ে স্থানীয় পুলিশ স্টেশনে নিয়ে যাওয়ার পরে আসল ঘটনা সামনে আসে সকলের।

পঞ্চগনি পুলিশ স্টেশনের এক অফিসার জানিয়েছেন ওই পড়ুয়ারা তাঁদের কাছে বিস্তারিত ভাবে সব তা জানিয়েছে। তাঁদের জোর করে পর্ণ দেখানোর পাশাপাশি শারীরিক ভাবে নির্যাতন করত।

এক পড়ুয়ার অভিভাবকের অভিযোগের ভিত্তিতে ওই স্কুলের দুই কর্মচারীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। অভিযুক্তের বিরুদ্ধে ৩২৩,৩২৪,৩৭৯ এবং পকসো আইনে অভিযোগ দায়ের হয়েছে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।