চেন্নাই : টেকনোলজি আপনার শত্রু হয়ে দাঁড়াবে, কখনও ভেবেছিলেন এমনটা হবে? অবশেষে টেকনোলজিতেই কাবু গোটা বিশ্ব৷ সেই ঘটনাই উঠে এল ‘2.0’ ট্রেলারে৷

সুপারস্টার রজনীর ছবির ট্রেলার মুক্তি পেতেই কয়েক ঘন্টায় লাইকস ছাড়িয়েছে চার লাখের বেশি৷ হঠাৎ করে উড়ে যেতে লাগল সবার সেলফোন৷ যারা ফোনে কথা বলছিলেন, সেলফি তুলছিলেন, ফোনের দোকানে দাঁড়িয়ে পছন্দসই ফোন বেছে নিচ্ছিলেন, সব জায়গা থেকে এক নিমেষে উড়ে যেতে লাগল পৃথিবীর প্রত্যেকটা সেলফোন৷

 

বলা হচ্ছে, পৃথিবীর কলিযুগে এলিয়ানরা এসে নাকি পৃথিবী ধ্বংস করবে কিংবা দখল করবে৷ ফোন আকাশে উধাও হয়ে যাওয়া কি এরই আভাস? এটাই হল প্রশ্ন৷ আর এইসবের উত্তর মিলবে চিট্টির কাছ থেকে৷ কারণ, ‘রোবোট’র সিক্যুয়েল এই ‘2.0’ ছবিটি৷

দেড় মিনিটে ট্রেলার রয়েছে অবাক করে দেওয়া কিছু দৃশ্য৷ যা একমাত্র হলিউড ছাড়া কোথাও দেখতে পাওয়া যায় না৷ তামিল সুপারস্টার রজনীকান্তের সুপারপাওয়ার ফের ছড়াতে চলেছে বিশ্ব জুড়ে৷ ট্রেলারs হইচই পড়ে গিয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়৷

রজনীকান্ত ছাড়াও ছবিতে রয়েছেন বলিউডের ‘প্যাডম্যান’ অক্ষয় কুমার৷ কিন্তু গ্যারেন্টি দিয়ে বলা যেতে পারে যে আপনি তাঁকে চিনতে পারবেন না৷ মানুষের খোলস ছেড়ে তিনি এখন পৃথিবীর সবচেয়ে খতরনাক ভিলেন ডাক্তার রিচার্ড৷ আর তাঁর সুপারপাওয়ারের পাশে ফেল বিজ্ঞান প্রযুক্তিও!

এই সুপারপাওয়ারের উৎস হল সেফোন৷ যাকে হাতিয়ার করে পৃথিবীর বুকে ঘোর অন্ধকার নিয়ে ধেয়ে আসছে সে৷ বিজ্ঞানও যেখানে ব্যর্থ হল সেখানে আশার আলো কেবল চিট্টি৷ রজনীকান্ত অর্থাৎ ডাক্তার বসিকরণের এর রোবোট চিট্টি৷

 

অবশেষে চিট্টিই এলো উদ্ধারে৷ কীভাবে সে এমন ভিলেনের থেকে বাঁচাবে পৃথিবীর মানুষদের? কারণ এ ভিলেন কখনো মানুষরূপী তো কখনও বাজপাখি তো কখনও মোবাইল ফোন দিয়ে তৈরি আর্মি৷ সবকিছুর প্রশ্ন মিলবে নভেম্বরের ২৯ তারিখ৷

ছবির ভিস্যুয়েল এফেক্টস সম্বন্ধে বলতে গেলে এক কথায় অসাধারণ৷ থ্রিডি তে না দেখলে এ ছবির মজা নেই৷ প্রিক্যুয়েলের পরিচালক শঙ্করই এ ছবির পরিচালনার দায়িত্বে রয়েছেন৷ রজনীকান্ত এবং অক্ষয় কুমার ছাড়াও অভিনয় রয়েছেন এলি আব্রম, শুধাংশু পান্ডে, আদিল হুসেন সহ অনেকে৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

জীবে প্রেম কি আদৌ থাকছে? কথা বলবেন বন্যপ্রাণ বিশেষজ্ঞ অর্ক সরকার I।