লন্ডন: ১৯৬৬ বিশ্বজয়ী ইংরেজ ফুটবল দলের সেন্ট্রাল ডিফেন্ডার জ্যাক চার্লটন প্রয়াত হলেন। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৮৫ বছর। জ্যাক চার্লটনের আরও একটি পরিচয় ম্যাঞ্চেস্টার ইউনাইটেড কিংবদন্তি স্যার ববি চার্লটনের দাদা তিনি। ববি যেমন ম্যান ইউ কিংবদন্তি, তেমনই জ্যাক ছিলেন লিডস ইউনাইটেডের একজন কিংবদন্তি। ১৯৫২-৭৩ দীর্ঘ ২১ বছর লিডসের হয়ে ফুটবল খেলেছেন জ্যাক। ১৯৬৯ প্রিমিয়র লিগ জয়ী লিডস ইউনাইটেডের খেতাব জয়ের অন্যতম কারিগর ছিলেন ৭৭৩ ম্যাচ খেলা জ্যাক।

১৯৬৯ প্রিমিয়র লিগ ছাড়াও ১৯৭২ লিডসের হয়ে এফএ কাপ জিতেছিলেন তিনি। তবে তাঁর কেরিয়ারের সর্বাপেক্ষা উল্লেখযোগ্য ঘটনা অবশ্যই ১৯৬৬ জাতীয় দলের জার্সি গায়ে বিশ্বকাপ জয়। উল্লেখ্য, ভাই ববি চার্লটনও ছিলেন ওই বিশ্বজয়ী দলের একজন সদস্য। এক পারিবারিক বিবৃতির মাধ্যমে জ্যাকের মৃত্যু সংবাদ সম্পর্কে জ্ঞাত করা হয়েছে। বিবৃতিতে জানানো হয়েছে, ‘বার্ধক্যজনিত কারণে কোনওরকম কষ্ট ছাড়াই শুক্রবার জ্যাকের মৃত্যু হয়েছে। তাঁর বয়স হয়েছিল ৮৫ বছর। নর্থ্যাম্বারল্যান্ডের বাড়িতেই শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেছেন তিনি। মৃত্যুর সময় পরিবার তাঁর পাশে ছিল।

একজন দারুণ বন্ধুর পাশাপাশি জ্যাক ছিলেন তাঁর পরিবারের অত্যন্ত প্রিয় একজন স্বামী, বাবা, ঠাকুরদা। তাঁর বর্ণময় জীবনের জন্য তাঁর পরিবার অত্যন্ত গর্বিত একইসঙ্গে বিভিন্ন সময় বিভিন্ন দেশের মানুষের জীবনে তিনি অত্যন্ত খুশি এনে দিয়েছিলেন।’ ফুটবলারের পাশাপাশি একজন দক্ষ প্রশিক্ষক হিসেবেও সুনাম কুড়িয়েছিলেন জ্যাক। ১৯৯০ বিশ্বকাপে তাঁর প্রশিক্ষণেই বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনাল খেলেছিল আয়ারল্যান্ড। এছাড়াও আয়ারল্যান্ডকে একাধিক প্রতিযোগীতার ফাইনালে পৌঁছে দিয়েছিলেন জ্যাক। ফলস্বরূপ ১৯৯৬ রিপাবলিক অফ আয়ারল্যান্ডের সাম্মানিক নাগরিকত্ব লাভ করেন তিনি।

তাঁর মৃত্যুতে এক শোকবার্তায় লিডস ইউনাইটেড জানিয়েছে, ‘ক্লাবের কিংবদন্তি জ্যাক চার্লটনের প্রয়াণের ঘটনায় লিডস ইউনাইটেড গভীরভাবে শোকাহত। দীর্ঘ রোগভোগের পর গত রাতে ৮৫ বছর বয়সে মৃত্যু হয়েছে তাঁর। একজন সেন্ট্রাল ডিফেন্ডার হিসেবে অল-টাইম গ্রেট চার্লটন ক্লাবের জার্সিতে ২১ বছরের কেরিয়ারে রেকর্ড ৭৭৩ ম্যাচে মাঠে নেমেছিলেন।’

জ্যাকের মৃত্যুতে ম্যাঞ্চেস্টার ইউনাইটেড তাঁদের শোকবার্তায় লিখেছে, ‘ববি চার্লটনের দাদা এবং ১৯৬৬ ইংল্যান্ডের বিশ্বকাপ জয়ী দলের সদস্য জ্যাক চার্লটনের মৃত্যুতে আমরা শোকাহত।’

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ