নাগপুর: এক ১৯ বছরের তরুণীকে ধর্ষণ করে গোপনাঙ্গে রড ঢুকিয়ে দেওয়ার অপরাধে এক ব্যক্তিকে গ্রেফতার করেছে স্থানীয় পুলিশ।

জানা গিয়েছে ২১ জানুয়ারি এই জঘন্য ঘটনাটি ঘটেছে। অভিযুক্ত ৫২ বছরের ইয়োগিলা রাহান্দালেকে ইতিমধ্যে পুলিশ গোন্দিয়া জেলা থেকে গ্রেফতার করেছে। অভিযুক্ত ব্যাক্তি একটি স্পিনিং মিলের সুপারভাইজার হিসেবে কাজ করতেন এবং ওই নির্যাতিতা ওই ব্যক্তির অধীনে কর্মরত ছিলেন।

২০১২ সালে দিল্লির রাজপথে ধর্ষণের ঘটনায় কেঁপে উঠেছিল দেশ। নির্যাতিতা তরুণীর সুস্থতা প্রার্থনা এবং দোষীদের শাস্তির দাবিতে একত্রে গলা মিলিয়েছিল সাধারণ মানুষ। আজকের দিনে দাঁড়িয়ে কেন মহিলাদের উপরে এই ধরণের নির্যাতন ঘটছে তা নিয়ে প্রশ্ন তুলতে শুরু করেছিলেন অনেকেই। মনে করা হয়েছিল হয়তো পরিস্থিতির বদল ঘটবে। কিন্তু পুনরায় এই ধরণের ঘটনা সামনে আসাতে বোঝা গিয়েছে বাস্তব চিত্র।

জানা গিয়েছে, নির্যাতিতা তরুণী এবং তার ভাই পারদি এলাকার একটি ভাড়া বাড়িতে থাকতেন ।পারদি পুলিশ ষ্টেশনের ইনস্পেকটর সুনীল ছাভান জানিয়েছেন ঘটনার দিন ওই তরুণীর ভাই এবং তার এক বন্ধু কাজে বেরিয়েছিলেন।

একা থাকার সুযোগ নিয়ে রাহান্দালে ওই মহিলাকে ধর্ষণ করার চেষ্টা করেছিল। কিন্তু বাধা দেওয়াতে ওই মহিলার মুখে কাপড় চেপে ধরে আটকানোর চেষ্টা করেছিলেন। অজ্ঞান হয়ে যাওয়ার পরে অভিযুক্ত ব্যক্তি তাঁকে ধর্ষণ করে এবং তার শরীরে লোহার রড ঢুকিয়ে দেয়। নির্যাতিতার করা অভিযোগের ভিত্তিতে পুলিশ অফিসার এমনটাই জানিয়েছেন।