মুম্বই : বন্ধু কে খুন করে তার দেহ লোপাটের চেষ্টার কথা পুলিশের কাছে স্বীকার করল ১৫ বছরের কিশোর৷ এই স্বীকারোক্তির মাধ্যমে এই ঘটনার কিনারা করতে সফল হল মুম্বই পুলিশ৷ গত বৃহস্পতিবার শাকিনাকা থানা এলাকায় এক ১০ বছরের কিশোর তার বন্ধুর সঙ্গে খেলতে যায়৷ তবে তার পর আর বাড়ি ফেরেনি এই কিশোর৷

কিশোরের বাবার কাছে মুক্তিপণ চেয়ে ফোন আসায় ঘটনাটি প্রকাশ্যে আসে৷ পেশায় ব্যবসায়ী তার বাবা এমন একটি ফোন পেয়ে চমকে যান৷ তার ব্যবসা ছেড়ে প্রথমে সে নিজের বাড়ি গিয়ে ছেলের খোঁজ করেন৷ তবে পরিবারের সদস্যরা তাকে জানান এই কিশোর তার এক বন্ধুর সঙ্গে খেলতে গিয়েছে৷ তখনই বিপদের আঁচ করেন এই কিশোরের বাবা৷ তিনি ঘটনার বিষয় পুলিশ কে জানিয়ে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন৷ তিনি অভিযোগে জানান তার কাছে মুক্তিপণ চেয়ে ফোন আসে৷ ফোনে তাকে বলা হয় পাঁচ লক্ষ টাকা দিতে৷ টাকা দিলেই ছেলে কে সুরক্ষিত বাড়ি ফেরানো হবে বলেও হুমকি দেওয়া হয় ফোনে৷

ঘটনার তদন্তে নেমে পুলিশ জানতে পারে শেষ বার এই কিশোর তার বন্ধুর সঙ্গে খেলতে গিয়েছিল৷ কিশোরের বাবা পুলিশ কর্তাদের যে নম্বর থেকে ফোন আসে সেই নম্বরটিও হাতে তুলে দেয়৷ পুলিশ কর্তারা নম্বরটি যাঁটাই করেই বুঝতে পারেন এই ঘটনার সঙ্গে কিশোরের বন্ধু জড়িৎ রয়েছে৷ তাকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করতেই পুলিশের কাছে ভেঙে পড়ে সে৷ পুলিশ কে এই অভিযুক্ত যুবক জানান সেই তার ১০ বছর বয়সি বন্ধু কে খুন করেছিল৷ তারে জেরা করে পুলিশ জানতে পারে খুন করার পর বন্ধুর দেহ লোপাট করতে সে এক পরিচিতির বাইক নিয়ে আসে. তার পর তার দেহ একটি ব্যাগে পুরে একটি বড় নর্দমায় ফেলে আসে৷ ঘটনায় তাকে যাতে কোনও ভাবে সন্দেহ না করা হয় সেই কারনে মুক্তিপণ চেয়ে বন্ধুর বাড়িতে ফোন করে সে৷

তবে কেন এই কিশোর তার বন্ধু কে খুন করেছে তা এখনও স্পষ্ট নয় তদন্তকারিদের কাছে৷ খুনের মোটিভ জানতে দফায় দফায় জেরা করা হচ্ছে অভিযুক্ত কিশোর কে৷ এই ঘটনার সঙ্গে আরও কেউ জড়িৎ রয়েছে কিনা তাও খতিয়ে দেখা হচ্ছে৷