নয়ডা: ১৫ বছরের এক নাবালককে প্রকাশ দিবালকে পিটিয়ে খুন করার জেরে উত্তাল রাজধানী। জানা গিয়েছে দুই ব্যক্তি আচমকা তার উপরে চড়াও হয়ে মারতে শুরু করে তার জেরেই এই ঘটনাটি ঘটে। বিষয়টি নিয়ে ইতিমধ্যে পুলিশের তরফে শুরু হয়েছে তদন্ত। গুরুতর জখম অবস্থাতে ওই নাবালককে হসপিটালে ভর্তি করা হয়েছিল। পুলিশের তরফে শুরু হয়েছে তদন্ত।

জানা গিয়েছে ওই নাবালক সবজি বিক্রি করত। দুই অভিযুক্তের নাম লিখিত রাঘব এবং আশিস সিং। মৃত নাবালকের নাম রোহিত। জানা গিয়েছে গত শুক্রবার রাতে ওই দুই অভিযুক্ত রোহিতের সব্জির গাড়ির উপরে আক্রমণ করে। ঘটনাটি ঘটে নয়ডার নয়া গাও এয়াকার কাছে।

গুরুতর জখম অবস্থাতে ওই নাবালককে দিল্লির এক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। রবিবারে হাসপাতালে মারা যায় ওই কিশোর। জানা গিয়েছে অভিযুক্ত ব্যক্তি ওই নাবালকের সব্জির গাড়িতে বাইক নিয়ে ধাক্কা মারে। রাস্তাতে পরে যাওয়ার পরে দুজনের মধ্যে শুরু হয়েছিল বিতরক। কিন্তু বিষয়টি এই রকম হবে তা বুঝতে পারে নি ওই নাবালক।

জানা গিয়েছে তীব্র বাদানুবাদের সময় ওই নাবালক অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে পুলিশে অভিযোগ করার ভয় দেখালে তারা সেখান থেকে পালিয়ে যায়। কিন্তু ফের লাঠি নিয়ে ওই জায়গাতে এসে ওই নাবালকের উপরে চড়াও হয়। নৃশংস ভাবে মারতে থাকে। ওই নাবালকের মাথাতেও আঘাত করে । গুরুতর জখম অবস্থাতে ওই নাবালককে স্থানীয় হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখান থেকে দিল্লির সফদরজং হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানেই মারা যায় ওই নাবালক। ইতিমধ্যে বিষয়টি নিয়ে পুলিশের তরফে শুরু হয়েছেতদন্ত। অভিযুক্তদের পুলিশি হেফাজতে নেওয়া হয়েছে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.