নয়াদিল্লি: আপাতত বেসরকারি হাতে তুলে দেওয়া হচ্ছে ভারতীয় রেলের ১৫১টি রুট। এরমধ্যে থাকছে বাংলার উপর দিয়ে যাওয়া ১৫টি দূরপাল্লার ট্রেনের রুট। আগামী সপ্তাহের এই বিষয়ে দরপত্র দেওয়ার কাজ শুরু করবে। এই সব রুটে বেসরকারি সংস্থা ট্রেন চালাতে আগ্রহ প্রকাশ করেছে বলে জানালেও সেগুলি কোন কোন সংস্থা সে ব্যাপারে বিস্তারিত কিছু জানানো হয়নি।

পড়ুন আরও- ‘রেলকে বেসরকারিকরণ করলে তাঁরা কি সাধারণের সুবিধে দেখবে’, কেন্দ্রকে প্রশ্ন অধীরের

বাংলার যেসব রুটে প্রভাব পড়ছে সেগুলি হল-রাঁচি ভায়া পুরুলিয়া, হাওড়া পুনে, হাওড়া চেন্নাই, হাওড়া পুরী, হাওড়া রাঁচি, নিউ বঙ্গাইগাও হাওড়া, হাওড়া আনন্দবিহার, হাওড়া বারাণসী ‌ ভায়া পাটনা, শিয়ালদহ গুয়াহাটি, হাওড়া ভাগলপুর, আসানসোল পুরী, আসানসোল সুরাট, হাওড়া সেকেন্দ্রাবাদ, হাওড়া বেঙ্গালুরু, হাওড়া মুম্বই।

পড়ুন আরও- রেলের বেসরকারিকরণ: এপ্রিল থেকেই ট্র্যাকে ছুটবে প্রাইভেট ট্রেন

গত বছরেই রেল নীতিগত সিদ্ধান্ত নিয়েছিল ১৫১ টি রুটের ট্রেনকে চালানোর জন্য বেসরকারি হাতে তুলে দেওয়া হবে। এবার কারা কারা আগ্রহী সেটাই জানতে চাইল কেন্দ্র। এমন উদ্যোগের ফলে আশা করা হচ্ছে রেলের ঘরে প্রায় ৩০ হাজার কোটি টাকা আসবে। প্রসঙ্গত বর্তমানে যাত্রীরা কিলোমিটার প্রতি ৪৩ পয়সা ভর্তুকি পা । ‌

বেসরকারি হাতে গেলে আর সেই ভর্তুকি পাওয়া যাবে না। একদিকে ভর্তুকি থাকবে না অন্যদিকে বেসরকারি সংস্থার মুনাফা দুয়ে মিলে টিকিটের দাম ভালোই বাড়বে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। কেন্দ্রের এই উদ্যোগের সমালোচনা করে রাহুল গান্ধী জানিয়েছেন, এই সরকার গরিবের লাইফ লাইন রেলকে কেড়ে নিচ্ছে।

জনতা এর জবাব দেবে। তবে এখন ভর্তুকি দেওয়া সত্বেও বাতানুকূল প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণীর ভাড়া এতটাই বেশি যে অনেক সময় তার চেয়ে ওই পথ অতিক্রম করতে বিমানে যাওয়া সস্তায় হয়। তাছাড়া বিমানে গেলে সময় বাঁচে ফলে সামান্য কিছু বেশি হল অনেকে বিমানে চড়া পছন্দ করছেন।

এর ফলে দূরপাল্লার ট্রেনের উচ্চ শ্রেণীতে যাত্রী কম হচ্ছে। তাছাড়া বিভিন্ন মহলের বক্তব্য, বিমান পরিবহন ক্ষেত্রে বেসরকারি সংস্থাগুলিকে পরিষেবা দিতে এগিয়ে আসার পর তুলনামূলকভাবে বিমান ভাড়া সস্তা হয়েছে এবং এখন অনেক লোক বিমানে চড়তে পারছে। ঠিক তেমনই রেল বেসরকারি সংস্থা চালালে ভাড়া বাড়বে এমনটা মনে করা উচিত নয় উল্টে কমতেও পারে।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ