ইসলামাবাদ: বৃহস্পতিবার সকালে পণ্যবাহী ট্রেনের সঙ্গে মুখোমুখি সংঘর্ষে প্রাণ গেল কমপক্ষে ১৪ জনের৷ আহত হয়েছেন ৭৯ জন৷ পাকিস্তানের সাদিকাবাদে ওয়ালহার রেলস্টেশনের কাছে এই দুর্ঘটনা ঘটে৷ পণ্যবাহী ট্রেনটি সরাসরি যাত্রীবাহি আকবর এক্সপ্রেসে গিয়ে ধাক্কা মারে বলে খবর৷

এখনও পর্যন্ত প্রায় হাজার জনকে উদ্ধার করা হয়েছে বলে ডন নিউজ টিভি সূত্রে খবর৷ রহিম ইয়ার খানের ডেপুটি কমিশনার জামিল আহমেদ জানিয়েছেন কোয়েট্টার দিকে যাচ্ছিল যাত্রীবাহী আকবর এক্সপ্রেস৷ দুর্ঘটনাগ্রস্থ ট্রেন থেকে সব যাত্রীদের নামিয়ে আনা হয়েছে৷ রেললাইন থেকে বগিগুলিকে সরিয়ে পরিষ্কারের কাজ শুরু হয়েছে৷

বগি সরাতে ভারি যন্ত্রপাতি নিয়ে এসে কাজ চলছে৷ উদ্ধার হওয়া যাত্রীদের খাবার ও জল সরবরাহ করা হয়৷ পুলিশ সূত্রে খবর, এই উদ্ধার কাজে পাকিস্তান সেনাও সাহায্য করতে পারে৷ বিভিন্ন জেলা থেকে অ্যাম্বুলেন্স নিয়ে এসে আহতদের হাসপাতালে ভরতির ব্যবস্থা করা হয়েছে৷ রহিম ইয়ার খানের সদর হাসপাতালেই অধিকাংশকে ভরতি করা হয়৷ এছাড়া বাকিদের ভরতি করা হয় সাদিকাবাদের শেখ জায়েদ হাসপাতালে৷

পুলিশের মুখপাত্র জানান দুর্ঘটনার খবর পাওয়া মাত্রই ঘটনাস্থলে পৌঁছয় পুলিশ ও দমকল৷ বিশাল পুলিশ বাহিনী নিয়ে এলাকায় পৌঁছন সাদিকাবাদের এএসপি ড: হাফিজুর রহমান বুগতি৷ প্রাথমিক ভাবে জানা যায় লাইন পরিবর্তনের সিগন্যাল দেওয়া হলেও ভুল বশত অন্য লাইনে চলে আসেন আকবর এক্সপ্রেসের চালক৷ তার ফলেই ঘটে এই মর্মান্তিক দুর্ঘটনা৷

এই গোটা ঘটনায় দু:খপ্রকাশ করেছেন পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান৷ ট্যুইট করে মৃত ও আহতদের পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন তিনি৷ দ্রুত সব ধরণের চিকিৎসা পরিষেবা যাতে আহতদের কাছে পৌঁছে দেওয়া যায় তার প্রয়োজনীয় নির্দেশ দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন ইমরান খান৷

একই সঙ্গে শোকপ্রকাশ করেছেন পাক রেলমন্ত্রী শেখ রসিদ আহমেদ৷ এই দুর্ঘটনায় কোনও গাফিলতি বরদাস্ত করা হবে না বলে জানিয়েছেন তিনি৷ রেলের পক্ষ থেকে গোটা ঘটনার তদন্ত করে দেখা হবে৷ মৃতদের পরিবারকে ১৫ লক্ষ ও আহতদের পরিবারকে ৫ লক্ষ টাকা ক্ষতিপূরণের আশ্বাস দিয়েছেন তিনি৷