হাওড়া: উলুবেড়িয়ায় এক ফার্মাসিস্টের বাড়িতে সিআইডি অফিসার সেজে তল্লাশি চালিয়ে প্রায় চার লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিয়ে গিয়েছিল পাঁচ জনের একটি দল। যাওয়ার সসময় দুষ্কৃতি দলটি বলে গিয়েছিল ভবানী ভবনে এসে দেখা করতে। সন্দেহ হওয়ায় সুধাংশু শেখর মণ্ডল নামের ওই ফার্মাসিস্ট উলুবেড়িয়া থানায় অভিযোগ দায়ের করলে পুলিশ তদন্তে নামে। এরপর বারাসত, তারকেশ্বর সহ বিভিন্ন জায়গায় তল্লাশি চালিয়ে পাঁচজনকেই ধরা হয়।

ঘটনার দিন ওই ফার্মাসিস্টের বাড়িতে সিআইডি পরিচয় দিয়ে ঢুকে এরা প্রথমে বিভিন্ন নথিপত্র দেখতে চায়। সুধাংশুবাবু কাগজপত্র দেখালে এরা বলে তা ভুল আছে। এরপরই টাকা দাবি করা হয়। তিনি কিছু বুঝে ওঠার আগেই আলমারি থেকে জোর করে চার লাখ টাকা বের করে নেয়। এবং যাবার সময় ভবানী ভবনে দেখা করতে বলে। এর একদিন পর থেকেই ফের সুধাংশুবাবুকে ফোনে করে আরও টাকার দাবি করে তারা। ভবানীভবনে গিয়ে দেখা করতে বলে।

সুধাংশুবাবু এরপর থেকে কয়েক দিন ধরে ভবানীভবনে যাতায়াত শুরু করেন। এরপর সিআইডি অফিসাররা সুধাংশুবাবুকে সন্দেহ হওয়ায় জিজ্ঞাসাবাদ করেন। এবং এরপর পুরো ঘটনা সামনে চলে আসে। যোগাযোগ করা হয় উলুবেড়িয়া থানার সঙ্গে। উলুবেড়িয়া পুলিশ এবং সিআইডি মোবাইল লোকেশন ধরে তল্লাশিতে নামে। বারাসাত থেকে প্রদীপ পাহাড়ি নামে একজনকে গ্রেফতার করা হয়। তারকেশ্বর থেকে জগন্নাথ রায়কে ধরা হয়। ধৃতদের জেরা করে বাকি তিনজন শেখ আসরফ, অমিয় চক্রবর্তী, কৃষ্ণপ্রসাদ শর্মাকে ধরা হয়। এদের বুধবার আদালতে তোলা হলে ১৪ দিনের জেল হেফাজতের আদেশ দেওয়া হয়।