ঢাকা: রাতভর আমফানের দাপট চলেছে। তারপর সকাল হতেই লুকিয়ে ঘরে ফেরার তাগিদে ট্রাকে চড়েছিলেন অনেকে। সেই ট্রাক দূর্ঘটনার কবলে। এতে মৃত্যু হল ১৩ জন পরিযায়ী শ্রমিকের। ঢাকা থেকে রংপুর যাওয়ার পথে এই মর্মান্তিক ঘটনা।

সম্প্রতি ভারতে পরপর দূর্ঘটনায় পরিযায়ী শ্রমিকদের মৃত্যু হয়েছে। করোনাভাইরাস সংক্রমণ রুখতে লকডাউনের কারণে বাড়িমুখো হয়েছিলেন এই শ্রমিকরা।

তবে লকডাউনের মাঝে বাংলাদেশে এমন বড় পথ দুর্ঘটনা প্রথম। জানা গিয়েছে, ঢাকা থেকে রড বোঝাই ট্রাক রংপুরে আসছিল। ট্রাকের ওপর ২০ জনের বেশি বসে ছিলেন। পলাশবাড়ীর জুনদহ এলাকায় চালক নিয়ন্ত্রণ হারায়। ট্রাকটি খাদে পড়ে ঘটনাস্থলেই ১৩ জন মারা যান।

খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে নিহতদের দেহ উদ্ধার করে। জখম পাঁচ জন স্থানীয় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। জানা গিয়েছে, মৃত ও আহত শ্রমিকরা রংপুর সহ আশেপাশের জেলার বাসিা। তারা সবাই শ্রমিক।

বাংলাদেশে করোনাভাইরাসের সামাজিক সংক্রমণ চলছে। সংক্রমণ রুখতে চলছে লকডাউন। ঢাকা ও অন্যান্য শহরে আটকে এখনও বহু শ্রমিক। অনেকে লুকিয়ে বিভিন্ন উপায়ে বাড়ি ফেরার চেষ্টা করছেন। ধরাও পড়েছেন।

ওয়ার্ল্ডোমিটার এবং স্বাস্থ্য অধিদফতরের হিসেব, ২৮হাজারের বেশি করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। এই সংখ্যা আরও বাড়বে। মৃত্যু হয়েছে ৪০০ জনের বেশি।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।