কাঠমাণ্ডু: অবৈধ ভাবে ব্যবসা চালাবার অভিযোগে নেপালের কাঠমাণ্ডু থেকে ১২ জন ভারতীয়কে গ্রেফতার করল নেপাল পুলিশ৷ অবৈধ ভাবে অর্থ পাচারের অভিযোগ চিল তাদের বিরুদ্ধে৷ এই অর্থলগ্নী সংস্থাটিকে আগেই নেপাল রাষ্ট্র ব্যাংক বেশ কয়েক বছর আগেই নিষিদ্ধ ঘোষণা করে৷ তারপরেও এরা গোপন ভাবে ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছিল বলে খবর৷

এই ঘটনার সঙ্গে যুক্ত সন্দেহে মোট ১২ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে৷ বেশ কয়েক জন নেপালিকে প্রতারণার অভিযোগ রয়েছে এদের বিরুদ্ধে৷ ধৃতদের সবাই উত্তরপ্রদেশের বাসিন্দা৷ শুক্রবার তাদের নেটওয়ার্ক বাড়ানোর উদ্দ্যেশ্যে প্রায় ৩০০ জনকে নিয়ে বিশেষ প্রশিক্ষণ চলছিল৷ তখনই গোপন সূত্রে খবর পেয়ে তল্লাশি চালায় পুলিশ৷

মূলত অতিরিক্ত টাকার লোভ দেখিয়ে এদের দলে টানা হত৷ সাধারণ মানুষকে ১২৫০ ডলার বিনিয়োগ করিয়ে মোটা টাকার কামানোর সুযোগ করে দেওয়া হবে বলে লোভ দেখান হত৷ তারপরেই টাকা নিয়ে চম্পট দিত তারা৷
মেট্রোপলিটন ক্রাইম রেঞ্জের ডিএসপি হবিনদ্রা বোগাতি বলেন সাইন গ্রুপ ইন্টারন্যাশনাল নামে একটি বেআইনী অর্থলগ্নী সংস্থা খুলে ধৃতরা কাজ করত৷

এর আগে ২০১৬ সালে নেপালে গ্রেফতার করা হয় পাঁচ ভারতীয় পুলিশকর্মীকে৷ পাঁচজনের এই দলে ছিলেন এক ইন্সপেক্টর৷ অপরাধীদের খোঁজার নামে সীমান্ত পেরিয়ে পাঁচ ভারতীয় পুলিশের এক দল নেপালে ঢুকে পড়ে বলে অভিযোগ৷ সানাগৌন থেকে তাদের গ্রেফতার করে নেপাল পুলিশ৷

সাদা পোশাকের পাঁচ ভারতীয় পুলিশের সঙ্গে অস্ত্র ছিল বলে জানিয়েছিল নেপালের ন্যাশনাল নিউজ এজেন্সি৷ পঞ্জাবে চিকিৎসকের খুনে অভিযুক্ত যুবককে খুঁজতে নেপালে ঢুকে পড়ে ভারতীয় পুলিশরা৷ আছামের দিকে যাওয়ার সময় তাদের গ্রেফতার করা হয়৷ তাদের কাছ থেকে একটি একে ৪৭ রাইফেল ও এটির ২৫ রাউন্ড গুলি, একটি পিস্তল ও এটির ১২ রাউন্ড গুলি বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে৷