শীতকালের শুরু মানেই মোটা মোটা উলের পোশাক। কান মাথা ঢেকে রাখা। তবু ঠাণ্ডার হাত থেকে রক্ষা পান না অনেকেই। মাঝে মাঝেই গলা ব্যাথা, গলা বসে যাওয়া, টনসিল এসব লেগেই থাকে শীত কাল জুড়ে। তবে গলা ব্যাথা কমানোর কিছু সহজ ঘরোয়া উপায় দেওয়া হল আপনার জন্য।  

১। উপাদেয় উপাদান- কিসমিস
কিসমিস গলা ব্যথা উপশমে অত্যন্ত উপদেয় একটি উপাদান। ব্যথা সম্পূর্ণ কমে যাওয়ারর আগ পর্যন্ত এটি নিয়মিত খেলে গলা ব্যথা ধীরে ধীরে কমে যায়।

২। উপাদেয় উপাদান- আদা / আদার রস
আদা বা আদার রস গলার সমস্যায় অত্যন্ত কার্যকরী। আদা টুকরো করে অথবা আদার রস করে খেলে গলার সমস্যা থেকে খুব সহজেই আরাম পাওয়া যায়।

৩। উপাদেয় উপাদান- জল, চা-পাতা, আদা, তুলসি পাতা
এক কাপ পরিষ্কার ফুটানো জল পাত্রে নিয়ে তাতে আধ চা চামচ আদাকুঁচি, আধ চা চামচ চা-পাতা, ২-৩ টি তুলসি পাতা দিয়ে ৫-১০ মিনিট গরম করতে হবে। ৫-১০ মিনিট পরে এটি নামিয়ে রেখে দিতে হবে। কিছুক্ষন পর অল্প গরম থাকতে খেয়ে নিন। এটি গলা ব্যথায় আরাম দেয়, তুলসি পাতায় ভেষজ গুণ রয়েছে যা গলা ব্যথা সারাতে অত্যন্ত কার্যকরী।

৪। উপাদেয় উপাদান-জল, তুলসি পাতা, মধু
এক গ্লাস পরিষ্কার জলে চার থেকে পাঁচটি তুলসি পাতা নিয়ে পাঁচ মিনিট ফুটাতে হবে। ফুটানো হয়ে গেলে এটি নামিয়ে দুই থেকে তিন ফোঁটা মধু মিশিয়ে নিয়ে পান করে ফেলতে হবে। এটি গলা ব্যথা কমাতে বেশ কার্যকরী।

৫। উপাদেয় উপাদান- জল, মধু, লেবুর রস
প্রথমে একটি লেবু নিয়ে তা থেকে লেবুর রস করে রাখতে হবে। প্রতিদিন সকালে ১ গ্লাস মৃদু গরম জলে এক চা চামচ লেবুর রস ও এক চা চামচ মধু মিশিয়ে সকালে খাওয়ার আগে খেতে হবে। প্রতিদিন এটি পান করলে গলা ব্যথা ও খুশখুশে কাশি কমবে।

৬। উপাদেয় উপাদান- গুড়, আদা
গলা ব্যথা ও গলায় যাবতীয় সমস্যার উপক্রম দেখলেই একটি গুড়ের টুকরার সঙ্গে এক চা চামচ আদার রস বা আদা টুকরা চিবিয়ে খাওয়া যেতে পারে। এটি প্রতিদিন সকালে খাওয়ার আগে খেলে ভালো ফল পাওয়া যায়।

৭। উপাদেয় উপাদান- মেথি গুঁড়া, জল
মেথি গুঁড়া করে নিয়ে জলে মিশিয়ে খেতে হবে।