কলকাতা: দীর্ঘদিন ধরে চেষ্টা চলছিল। বারবার আর্জি জানাচ্ছিলেন জাহাজের সদস্যরা। অবশেষে দেশে ফিরলেন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত ‘ডায়মন্ড প্রিন্সেস’ জাহাজে থাকা ১১৯ জন ভারতীয়।

যাত্রী ও ক্রু মেম্বারদের মধ্যে করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার পর জাপানের ইয়োকোহামা বন্দরে কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছিল জাহাজটিকে। বৃহস্পতিবার সকালে এয়ার ইন্ডিয়ার বিমানে দিল্লি ফেরান হয় জাহাজের সদস্যদের। তাঁদের সঙ্গেই ফিরেছেন শ্রীলঙ্কা, নেপাল, দক্ষিণ আফ্রিকা এবং পেরুর পাঁচ বাসিন্দা।

ফেব্রুয়ারির প্রথম সপ্তাহে জাহাজের এক যাত্রীর মধ্যে শরীরে ভাইরাসের অস্তিত্ব মেলে। তারপর থেকে জাপানের ইয়োকোহোমা বন্দরে সেটিকে ‘কোয়ারেন্টাইন’-এ রাখা হয়। ক্রুজের মোট ৩৭১১ জন যাত্রী ছিলেন। তাদের মধ্যে ১৩২ জন ক্রু মেম্বার ও ৬ জন যাত্রী-সহ মোট ১৩৮ জন ভারতীয় ছিলেন। তার মধ্যে ১৬ জনের শরীরে করোনাভাইরাসের প্রমাণ মেলে। চিকিত্‍সার জন্য তাঁদেরকে জাপানেই রেখে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। বাকিদের এদিন দেশে ফেরান হল।

এদিকে, করোনা ভাইরাস ছড়িয়েছে পাকিস্তানেও। পাক প্রশাসনের তরফে ইতিমধ্যে এই ব্যাপারে সত্যতা স্বীকার করে নেওয়া হয়েছে। বুধবার পাক প্রধানমন্ত্রীর হেলথ বিষয়কের স্পেশাল অ্যাসিস্ট্যান্ট ড. জাফর মির্জা করোনা সংক্রমণের ঘটনা নিশ্চিত করেছে।

ইতিমধ্যে এশিয়া ও ইউরোপে ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে করোনা। মারণ ভাইরাসের ভয়ে হাহাকার শুরু হয়েছে। চিনা সংবাদ সংস্থা জিনহুয়ার খবর, করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে বুধবার পর্যন্ত মোট ২৭৬৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। আক্রান্ত হয়েছেন ৮০ হাজার ৯৭০ জন। চিনে মারা গেছেন ২৭১৫ জন। এখানে এখন পর্যন্ত আক্রান্তের সংখ্যা ৭৮ হাজার ৬৪ জন। চিনা জাতীয় স্বাস্থ্য কমিশন জানাচ্ছে, মঙ্গলবার নতুন করে ৪০৬ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন।