গুয়াহাটি: বন্যা কবলিত অসমে লাফিয়ে বাড়ছে করোনা সংক্রমিতের সংখ্যা। গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তে আরও ১০৯৩ জন নোভেল করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। গুয়াহাটিতেই আরও ৪৪৮ জন নতুন করে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। গোটা রাজ্য বন্যার গ্রাসে। এর ওপর করোনার সংক্রমণ দিনে দিনে ছড়িয়ে পড়ায় রীতিমতো উদ্বেগে রয়েছে সর্বানন্দ সোনওয়াল প্রশাসন।

করোনা আবহে বন্যার গ্রাসে গোটা অসম। রাজ্যের ৩১টি জেলা বন্যার জেরে ভীষণভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। বহু এলাকায় ঘর ছেড়ে সরকারি ও বেসরকারি উদ্যোগে তৈরি ত্রাণ শিবিরে আশ্রয় নিয়েছেন মানুষ। বন্যার জলের তলায় কাজিরাঙা অভয়ারণ্য। প্রাণ বাঁচাতে জঙ্গল ছেড়ে লোকালয়ে ঢুকে পড়েছে বাঘ, গণ্ডার, হাতির দল।

এরই মধ্যে করোনার সংক্রমণও ছড়িয়ে পড়ছে রাজ্যের জেলায়-জেলায়। নতুন করে আরও ১০৯৩ জন অসনে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। অসমের স্বাস্থ্যমন্ত্রী হিমন্ত বিশ্বশর্মা জানিয়েছেন, রাজ্যে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ২৫ হাজার ৯২। করোনায় অসমে এখনও পর্যন্ত ৫৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। এই মুহূর্তে অসমে করোনা অ্যাক্টিভ কেস ৭ হাজার ৯৩৬।

অসমের ৩১টি জেলা বন্যার কবলে। বাড়ি-ঘর ছেড়ে সরকারি ও বেসরকারি উদ্যোগে তৈরি ত্রাণ শিবিরগুলিতে আশ্রয় নিয়েছেন ক্ষতিগ্রস্তরা। বিশেষজ্ঞদের আশঙ্কা, ত্রাণ শিবিরগুলিতে থেকেও নতুন করে সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ার প্রবণতা লক্ষ্য করা যাচ্ছে।

যদিও রাজ্য প্রশাসনের তরফে ত্রাণ শিবিরগুলিতে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার জন্য সবরকম ব্যবস্থা করা হয়েছে। তবুও ত্রাণ শিবিরগুলিতে সামাজিক দূরত্ববিধি মেনে চলা থেকে শুরু করে সংক্রমণ রুখতে অন্য সাবধানতাগুলি অবলম্বন করা কার্যত দুঃসাধ্য হয়ে পড়ছে। তা থেকেই নতুন করোনার সংক্রমণ ছড়ানোর আশঙ্কা তৈরি হচ্ছে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

জীবে প্রেম কি আদৌ থাকছে? কথা বলবেন বন্যপ্রাণ বিশেষজ্ঞ অর্ক সরকার I।