শংকর দাস, বালুরঘাট: অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি ১৯৪২ সালের ভারত ছাড়ো আন্দোলনের নেতা তথা জেলার একমাত্র জীবিত স্বাধীনতা সংগ্রামী সোমরা ওঁড়াও। সোমবার বেলা ১১টা বালুরঘাট জেলা হাসপাতালে তাঁকে ভরতি করান পরিবারের লোকেরা।

হাসপাতাল সূত্রে জানা গিয়েছে একশ সাত বছর বয়স্ক সোমরা ওঁড়াও বয়সজনিত রোগে আক্রান্ত। হাসপাতালের ডাঃ সুকান্ত মান্নার অধীনে তিনি চিকিৎসাধীন।

আরও পড়ুন : এবারের ভোট হোক ঘৃণার রাজনীতির বিরুদ্ধে, আরজি দেশজোড়া লেখকের

১৯৪২ এর ভারত ছাড়ো আন্দোলন বালুরঘাট থেকে প্রায় ২৫ কিলোমিটার দূরে পারিলাহাটে ব্রিটিশের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়িয়ে ছিলেন কয়েকশো মানুষ। যাঁদের অধিকাংশই ছিলেন আদিবাসী। ১৯৪২ সালের ১৮ সেপ্টেম্বর স্থানীয় কৈকুড়ি গ্রামের বাসিন্দা সোমরা ওঁরাও-এর নেতৃত্বে পারিলাহাটে কয়েকশাও আদিবাসী তীর ধনুক নিয়ে ইংরেজদের বিরুদ্ধে রীতিমতো যুদ্ধে নেমে পড়েছিলেন।

সেদিনের লড়াইয়ে ব্রিটিশের গুলিতে শহিদ হয়েছিলেন চারজন। পায়ে গুলিবিদ্ধ হয়ে জখম হয়েছিলেন কুড়ি জনেরও বেশি। পায়ে গুলি লেগেছিল সোমরা ওঁড়াওর৷ দেশ স্বাধীন হবার পর ভারত সরকার তাঁকে তাম্রফলক দিয়ে সম্মানীত করেছে। বহুদিন ধরেই তিনি অসুখে ভুগছিলেন বলে পরিবার সূত্রে জানা গিয়েছে।

আরও পড়ুন : বিজেপির টক্করে আজই ইস্তেহার প্রকাশ কংগ্রেসের

হাসপাতালের চিকিৎসক ডাঃ সুকান্ত মান্না মঙ্গলবার সকালে জানিয়েছেন যে বার্ধক্য জনিত নানান অসুখে আক্রান্ত সোমরা ওঁড়াও। রক্তে অক্সিজেনের মাত্রা কমে যাওয়ায় শ্বাসকষ্ট ও হার্ট ও নার্ভে সমস্যাও রয়েছে। বর্তমানে তাঁর অবস্থা স্থিতিশীল বলেও তিনি জানিয়েছেন।