নয়াদিল্লি: যারা নব্য প্রজন্মের মানুষ, তাঁরা এমন করোনার মতন মহামারি দেখেননি। অন্ততপক্ষে ভারতে তো নয়ই। কিন্তু সবক্ষেত্রে ব্যাপারটা এমন না। ১৯১৮ তে মহামারি স্প্যানিশ ফ্লু প্রত্যক্ষ করেছেন, এমন মানুষও আছেন। এদেশেই ! সেক্ষেত্রে তাঁর বয়স হতে হবে কমপক্ষে ১০২।

সম্প্রতি উঠে এসেছে দিল্লির ১০৬ বছরের এক বৃদ্ধের কথা। যখন তাঁর বয়স ৪ বছর, তখন স্প্যানিশ ফ্লু-র প্রকোপ দেখেছিলেন তিনি। তিনি সম্প্রতি করোনার প্রকোপ থেকে সুস্থ হয়ে উঠেছেন। তাঁর ছেলের বয়স বর্তমানে ৭০ বছর।

চিকিৎসকেরা জানিয়েছেন, সুস্থ হয়ে ওঠার পরে রাজীব গান্ধী সুপার স্পেশালিটি হাসপাতাল (আরজিএসএইচ) থেকে তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়। উল্লেখ্য ব্যাপার হল বয়স ১০৬ হলেও করোনা চিকিৎসায় তাঁর সাড়া দেওয়া দেখে রীতিমতো অবাক হয়েছেন চিকিৎসকেরা।

এমনকি চিকিৎসকেরা জানাচ্ছেন, ওই বৃদ্ধ যে শুধু সুস্থ হয়েছেন তাই নয়, তাঁর ছেলেও করোনা আক্রান্ত হয়েছিল। সেই ছেলের থেকেও দ্রুত সুস্থ হয়ে ওঠেন তিনি। এক সিনিয়র ডাক্তার জানিয়েছেন, “সম্ভবত। ইনিই দিল্লিতে প্রথম ব্যক্তি, যিনি ১৯১৮ এর ফ্লু-র সময়ও ছিলেন। যা কিনা এই করোনার মতোই বিশ্বকে ধ্বংসস্তূপে পরিণত করেছিল।

উল্লেখ্য, ১০২ বছর আগে স্প্যানিশ ফ্লু নামে একটি মহামারি সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়েছিল। সে সময় বিশ্বব্যাপী প্রায় এক তৃতীয়াংশকে প্রভাবিত করেছিল এই মহামারি।

চিকিৎসকেরা জানিয়েছেন, তাঁরা সঠিক নিশ্চিত নন যে এই বৃদ্ধ স্প্যানিশ ফ্লুতে আক্রান্ত ছিলেন কি না। তবে চিকিৎসকদের বক্তব্য, তেমন কোনও কাগজপত্র তাঁরা পাননি বা তেমন মেডিক্যাল হিস্ট্রিও নেই। কিন্তু সেই সময় খুব কম হাসপাতাল ছিল। ওই বৃদ্ধের দায়িত্বে থাকা এক চিকিৎসক জানিয়েছেন, ১০৬ বছরের বৃদ্ধের বেঁচে থাকার ইচ্ছা শক্তি দেখে তিনি যথেষ্ট অবাকই হয়েছিলেন।

চিকিৎসকেরা বলছেন, ওই ব্যক্তি জীবনে দুটি মহামারি পার করলেন। ওই ব্যক্তির স্ত্রী এবং পরিবারের অন্য এক সদস্যও করোনা আক্রান্ত হয়েছিলেন। তবে চিকিৎসার পরে ৪ জন সদস্যই সুস্থ হয়ে উঠেছেন।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ