ওয়াশিংটন: মঙ্গলবার কথোপকথন হয়েছে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ও মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের। আর তারপরই হোয়াইট হাউসের তরফে জানানো হল যে, আগামী সপ্তাহেই ভারতে পাঠানো হচ্ছে ১০০ টি ভেন্টিলেটর।

ভারতের করোনা রোগীদের চিকিৎসার জন্য ওই ভেন্টিলেটর দিচ্ছে আমেরিকা। ফোন করে নরেন্দ্র মোদীকে সেকথা জানিয়েছেন ট্রাম্প। প্রথম পর্যায়ে ওই ১০০টি ভেন্টিলেটর পাঠানো হচ্ছে বলে জানিয়েছে হোয়াইট হাউস।

ভারতে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা পেরিয়েছে ২ লক্ষ। আর করোনা রোগীদের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ এই ভেন্টিলেটর। কারণ, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার দেওয়া পরিসংখ্যা অনুযায়ী, প্রত্যেক ৫ করোনা আক্রান্তের মধ্যে একজনের প্রয়োজন পড়ে এই ভেন্টিলেটর।

যেহেতু এই ভাইরাস ফুসফুসে আক্রমণ করে, তাই কৃত্রিমভাবে নিঃশ্বাস নেওয়ার প্রবোজন পড়েল তখনই ভেন্টিলেটরের প্রয়োজন হয়।

মঙ্গলবার দীর্ঘক্ষণ কথা হয় মোদী ও ট্রাম্পের। এরপরই হোয়াইট হাউসের তরফ থেকে এই খবর জানানো হয়।

কেন্দ্রীয় সরকারের তরফ থেকে জানানো হয়েছে যে একাধিক বিষয়ে কথা হয়েছে দুই দেশের। তার মধ্যে ভারত-চিন সংঘাতের প্রসঙ্গও রয়েছে। যদিও ঠিক কী কথা হয়েছে, তা জানানো হয়নি। আগে অবশ্য ভারত ও চিনের মধ্যে মধ্যস্থতা করার বার্তা দিয়েছিলেন ট্রাম্প।

এছাড়া G7 সামিটেও ট্রাম্প আমন্ত্রণ করেছেন মোদীকে।

এদিকে, বুধবার সকাল পর্যন্ত স্বাস্থ্যমন্ত্রকের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী দেশে নোভেল করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ২ লক্ষ ছাড়িয়ে গিয়েছে।

করোনার সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়া রুখতে পঞ্চম দফার লকডাউনে শুরু হয়েছে আনলক. ১ তৎপরতা। টানা লকডাউনের পর ধীরে ধীরে ছন্দে ফিরতে শুরু করেছে রাজ্যগুলি। রাজ্যে-রাজ্যে দোকান-বাজার খোলার ক্ষেত্রে ছাড় দেওয়া হয়েছে। শুরু হয়েছে গাড়ি চলাচল।

তবে কন্টেনমেন্ট জোনগুলিতে এখনও রয়েছে বেশ কিছু বিধি-নিষেধ। একইসঙ্গে দোকান-বাজার চালু হলেও করোনা রুখতে সব ধরনের স্বাস্থ্যবিধি মেনেই বাড়ির বাইরে পা রাখতে আবেদন জানানো হচ্ছে নাগরিকদের।

কলকাতার 'গলি বয়'-এর বিশ্ব জয়ের গল্প