গান্ধীনগর: লোকসভা ভোটের মুখে ১০০ ভারতীয় মৎস্যজীবীকে মুক্তি দিয়েছে পাকিস্তান৷ বৃহস্পতিবার তারা সকলে ভদোদরা এসে পৌঁছন৷ ভারতীয় মৎস্যজীবীদের মুক্তি দিয়ে পাকিস্তান নয়াদিল্লির সঙ্গে সুসম্পর্কের ইঙ্গিত দিতে চেয়েছে বলে মনে করছে কূটনৈতিক মহল৷

চলতি সপ্তাহে পাক জেলে বন্দি ১০০ ভারতীয় মৎসজীবীকে মুক্তি করার কথা ঘোষণা করে ইসলামাবাদ৷ তারপর ৮ এপ্রিল আটারি-ওয়াঘা সীমান্ত দিয়ে ভারতে আসেন ওই মৎস্যজীবীরা৷ তারপর অমৃতসর থেকে ট্রেনে ভদোদরা পৌঁছন সকলে৷

গত দেড় বছরের বেশি সময় ধরে করাচি জেলে বন্দি ছিলেন এই মৎস্যজীবীরা৷ দেশে ফিরে আসার পর সকলের চোখে খুশির জল৷ পাকিস্তানে জেলে থাকার অভিসপ্ত অভিজ্ঞতার কথা জানান৷ একবাক্যে সকলে জানান, ‘ভয়াবহ৷’

ইন্টারনেট থেকে প্রাপ্ত৷

১০০ ধীবর গুজরাতেরই বাসিন্দা৷ তাদের একজন জানান, অনেকে না বুঝে আন্তর্জাতিক জল সীমানা পেরিয়ে পাকিস্তানে ঢুকে পড়ে৷ কেউ কেউ মাছ ধরার জন্য জেনেশুনে পাকিস্তানের জল সীমানায় ঢুকে যায়৷ তারপর পাক উপকূলরক্ষী বাহিনীর হাতে ধরা পড়ে যায়৷ ১৭ মাস সেদেশের জেলে বন্দি জীবন কাটাতে হয়েছে৷ সবাইকে একটি ছোট কুঠুরিতে ঠাসাঠাসি করে রাখা হয়৷ কাউকে বাইরে বেরতো দেওয়া হত না৷ পুলওয়ামা হামলার পর দুই দেশের মধ্যে উত্তেজনা চরমে৷ সেই সময় তাদের বলা দেওয়া হয়েছিল, ‘নিরাপদে থাকতে হলে কুঠুরি থেকে যেন বের না হই’৷

গত ৫ এপ্রিল পাকিস্তান ঘোষণা করে তাদের জেলে বন্দি ৩৬০ জন ভারতীয় মৎস্যজীবীদের তারা মুক্তি দেবে৷ সৌজন্যতা দেখাতেই এই সিদ্ধান্ত৷ চার দফায় মৎস্যজীবীদের ছাড়া হবে৷ প্রথম দফায় ১০০ জনকে ছাড়া হল৷