দিন দিন বেড়েছে হোয়াটসঅ্যাপের ব্যবহার৷ বর্তমানে দেশে জুড়ে হোয়াটসঅ্যাপের ব্যবহার করেন কয়েক কোটি মানুষ৷ ফিচারের আধুনিকতার জন্যই মূলত বেড়েছে ইউজার সংখ্যা৷ তবে, এখন নিত্যদিনের প্রয়োজন হয়ে উঠেছে ম্যাসেজিং অ্যাপটি৷ ২০০৯ সালে অ্যাপটিকে লঞ্চ করেছিল ফেসবুক৷ তবে, এখনও বেশ কিছু অজানা বিষয় রয়েছে অ্যাপটির৷ যেগুলিকে ট্রাই করতে পারেন আপনিও৷

১) বন্ধুদের সঙ্গে গিয়ে আড্ডা দিতে পারেন না অনেকেই৷ তারা ট্রাই করতে পারেন হোয়াটসঅ্যাপের গ্রুপ কলের ফিচারটিকে৷ স্ক্রিনের ডান দিকে একেবারে উপরে ‘অ্যাড পার্টিশিপেন্ট’ অপশনটিকে ব্যবহার করুন৷ আর, জমিয়ে আড্ডা দিন৷

২) হোয়াটসঅ্যাপ তো ব্যবহার করেন৷ কিন্তু, জানেন কী কোন ব্যাক্তির সঙ্গে আপনি সবথেকে বেশি সময় কথা বলেছেন? রেকর্ড রয়েছে হোয়াটসঅ্যাপের কাছে৷ জানতে হলে ক্লিক করুন-সেটিংস-ডেটা-স্টোরেজ ইউজেস৷ কথা বলার পরিমান অনুযায়ী আপনার সামনে হাজির হবে লিস্টটি৷

৩) মিউট চ্যাট৷ অনেকেই ব্যবহার করেন অপশনটিকে৷ তবে, এখনও পর্যন্ত অনেকেই ব্যবহার করেননি মিউট চ্যাটের অপশন৷ এদিকে অপ্রয়োজনীয় ম্যাসেজের জেরে বিরক্ত৷ কী করবেন? ব্যবহার করতে পারেন মিউট চ্যাট অপশনটি৷

৪) বাণিজ্যিক ক্ষেত্রেও রয়েছে হোয়াটসঅ্যাপের ব্যবহার৷ বানিয়ে ফেলুন হোয়াটসঅ্যাপ বিজনেস প্রোফাইল৷ প্রোফাইলে অ্যাড করুন বিজনেসের ডেসক্রিপশন, ই-মেল অ্যাড্রেস, বিজনেস অ্যাড্রেস এবং ওয়েবসাইটের সম্পর্কে৷

৫) অনেক সময়ই আমরা চাই না প্রোফাইল ফটো কেউ দেখুক৷ অথচ, প্রফাইলেই রয়েছে ছবিটি৷ সেক্ষেত্রে, বব্যহার করতে পারেন নোবডি অপশনটিকে৷ অ্যাকাউন্ট সেটিংস-প্রিভেসি-প্রফাইল ফটো-নোবডি৷

৬) হোয়াটসঅ্যাপের মাধ্যমে শেয়ার করতে পারবেন লাইভ লোকেশনও৷ অ্যাটাচমেন্ট মেনু-লোকেশন-শেয়ার লোকেশন৷ অনেকে সময়ই লোকেশন নিয়ে রাস্তায় সমস্যায় পড়েন পথচারীরা৷ সেই পরিস্থিতিতে ব্যবহার করতে পারেন অপশনটিকে৷

৭) হোয়াটসঅ্যাপ পেমেন্টস৷ অনেকেই জানেন না হোয়াটসঅ্যাপের এই ফিচারটির বিষয়ে৷ যেটিকে ব্যবহার করতে নিজের ব্যাংক অ্যাকাউন্টের সঙ্গে লিঙ্ক করিয়ে নিন অ্যাপটিকে৷ তালিকাতে থাকছে আইসিআইসিআই ব্যাংক, এসবিআই এবং এইটডিএফসি ব্যাংক৷