থেমে থেমে গুলির শব্দে উত্তপ্ত এলাকা৷ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে মোতায়েন করা হয়েছে প্রচুর সেনা জওয়ান৷ পাকিস্তান মদতপুষ্ট জইশ ই মহম্মদ জঙ্গিরা হামলায় জড়িত বলেই মনে করা হচ্ছে৷ জম্মুর সাঞ্জুয়ানা আর্মি ক্যাম্প যেন যুদ্ধক্ষেত্র৷

শ্রীনগর: সাঞ্জুয়ানা আর্মি ক্যাম্পে হামলার ঘটনায় শহিদ হলেন দুই জওয়ান। এদিন জয়েশ জঙ্গিদের গুলির মুখে প্রাণ দেন জেসিও এম আশরফ মীর ও এনসিও লেফট্যানেন্ট মদনলাল চৌধুরি। এরা দু’জনেই কাশ্মীরের বাসিন্দা। অপারেশন শেষে সেনাবাহিনী জানিয়েছে, অভিযানে চালিয়ে তিন জঙ্গিকে খতম করেছে সেনা।

জম্মু থেকে ১০ কিলোমিটার দূরে সাঞ্জুয়ানা আর্মি ক্যাম্পে হামলার পিছনে জইশ ই মহম্মদ জঙ্গি গোষ্ঠী জড়িত বলেই মনে করা হচ্ছে৷ অনেকটা ২০১৬ সালের পাঠানকোটে বায়ুসেনার ঘাঁটিতে হামলার ধাঁচে সাঞ্জুয়ানা আর্মি ক্যাম্পে হামলা হয়েছে৷

শনিবার ভোরের দিকে আলো-আঁধারির সুযোগ নিয়ে জম্মু-কাশ্মীরের সাঞ্জুয়ানা সেনা ক্যাম্পে হামলা চালায় জঙ্গিরা৷ সেনা ক্যাম্পে ঢুকেই তারা এলোপাথাড়ি গুলি চালাতে শুরু করে৷ জানা গিয়েছে, কয়েকজন ক্যাম্পের পিছনে হামলা করে এবং ভিতরে ঢুকে পড়ে৷ এর পর গুলি চালানো শুরু হয়৷

সেনা ক্যাম্পের ৫০০ মিটারের মধ্যে যে কটি স্কুল রয়েছে, তা বন্ধ করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে৷ কপ্টারের সাহায্যেও এলাকায় চলছে নজরদারী৷ ওই সেনা ক্যাম্প ঘনবসতিপূর্ণ এলাকায়৷ সেখানে আর্মি অফিসারদের পরিবারের সদস্যরা থাকেন বলে সেনা সূত্রে খবর৷ ফলে ভোরেই অনেকে বেরিয়ে পড়েছিলেন প্রাতঃভ্রমণের জন্য৷ তাঁদের অনেকেই জঙ্গিদের অতর্কিত হামলার মুখে পড়ে যান৷