শ্রীনগর: জম্মুতে বাসের মধ্যে গ্রেনেড হামলায় একজনের মৃত্যু হয়েছে৷ অন্যদিকে আহতের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ২৮৷ বৃহস্পতিবার জম্মু শহরের প্রাণকেন্দ্রের একটি বাসস্ট্যান্ডে গ্রেনেড বিস্ফোরণ ঘটায় জঙ্গিরা৷ তাতে অনেকে আহত হন৷ সকলকে স্থানীয় হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়৷ চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, কয়েকজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক৷

ইতিমধ্যে এই ঘটনায় এক সন্দেহভাজন জঙ্গিকে গ্রেফতার করেছে জম্মু পুলিশ৷ সূত্রের খবর, ধৃত জঙ্গি দক্ষিণ কাশ্মীরের বাসিন্দা এবং সংগঠনের সদস্য৷ এছাড়া হামলায় জড়িত সন্দেহে আরও ১০ জনকে আটক করা হয়েছে৷ পুলিশের অনুমান, গ্রেনেড হামলার পিছনে হাত রয়েছে স্লিপার সেলের৷ এরা নীরবে থেকে সন্ত্রাসী কার্যকলাপ চালিয়ে যায়৷ হামলার ধরন দেখে তেমনই অনুমান পুলিশের৷

গ্রেনেড হামলার স্থলটি পুলিশ সিল করে দিয়েছে৷ শুরু হয়েছে তল্লাশি৷ নিয়ে যাওয়া হয়েছে পুলিশ কুকুর৷ পাঠানো হয়েছে ফরেন্সিক বিশেষজ্ঞ৷ পুলিশের এক কর্তা জানিয়েছে, গ্রেনেডটি বাইরে থেকে হয়েছে৷ তারপর সেটি বাসের নিচে রেখে দেওয়া হয়৷ স্থানীয়রা জানিয়েছেন, আহতরা অধিকাংশ বাস চালক ও খালাসি৷ বাসে কোনও লোক ছিল কিনা তা পরিস্কার নয়৷

ঘটনার কথা বলতে গিয়ে স্থানীয়রা জানান, সকাল এগারোটার পর বিকট শব্দে চমকে যান সকলে৷ তারা প্রথমে ভাবেন টায়ার ফেটেছে৷ কিন্তু ভুল ভাঙে কিছুক্ষণ পর৷ বাসস্ট্যান্ড থেকে আর্তনাদের শব্দ শুনে ছুটে যান সকলে৷ গোটা এলাকা ধোঁয়ায় ভরে যায়৷ সেখান থেকে আহতদের উদ্ধার করে মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়৷

গত দশমাসে এই নিয়ে তৃতীয় গ্রেনেড হামলা করেছে জঙ্গিরা৷ গতবছর ডিসেম্বর মাসে বাসস্ট্যান্ডে গ্রেনেড ছোঁড়ে জঙ্গিরা৷ তাদের টার্গেট ছিল স্থানীয় পুলিশ স্টেশন৷ এই ঘটনার সাত মাস ২৪ মে বি সি রোডে গ্রেনেড হামলা হয়৷ সেই ঘটনায় দুই পুলিশকর্মী ও এক কাশ্মীরি আহত হন৷