স্টাফ রিপোর্টার,মালদহ: দেশের শীর্ষ ৫০ জন ঋন খেলাপিদের ৬৮ হাজার কোটি টাকা ঋন মুকুব করেছে রিজার্ভ ব্যাংক। অথচ লকডাউনেও কৃষিঋণের কিস্তি ১০ হাজার টাকা কেটে নেওয়ায় চরম বিপাকে পড়েছে এক চাষি। নাম মালেক মসদর। বাড়ি মালদহ জেলার হরিশ্চন্দ্রপুর-১ নং ব্লকের মহেন্দ্রপুর জিপির রামপুর গ্রামে। মালেক জানান, সে এস বি আই ব্যাঙ্কের মালদহ জেলার হরিশ্চন্দ্রপুর শাখা থেকে বরাবরই কৃষিঋণ নিয়ে জমি চাষ করে থাকেন।

২০১৫ সাল থেকে কৃষিঋণ নিয়ে আসছে এবং ঠিক সময়ে তা পরিশোধও করেছেন। ২০১৭ সালের জুন মাসে ৩৫ হাজার টাকা কৃষিঋণ নিয়ে জমি চাষ করলে আগষ্টের বন্যায় ও ২০১৮ সালের ফনি ঘূর্ণিঝড়ে পরপর দুই বছর তার সব ফসল নষ্ট হয়ে যায়। ২০১৯ সালেও মালদহ জেলার কিছু অংশ জুড়ে বন্যা হয়। সেই বছর সামান্য পরিমাণ ফসল হলেও তা ধারদেনা শোধ করতে সব শেষ হয়ে যায়। এবছর ফসল এখনো মাঠে আছে।

ফসল উঠলে তা বিক্রি করে কৃষিঋণ পরিশোধ করার কথা থাকলেও তা করোনা মহামারীতে কর্মহীন হয়ে পরেছে। লকডাউনকে সমর্থন করে গৃহবন্দী হয়ে রয়েছেন তিনি। ঘরে দেখা দিয়েছে চরম খাদ্য সংকট। তিনি আরও জানান, তার দুই ছেলে এক মেয়ে ও স্বামী-স্ত্রী সহ মোট পাঁচ জনের অভাবের পরিবার। দুই ছেলে ভিন রাজ্যে কাজ করতে গিয়ে লকডাউনে আটকে পরেছে।

লকডাউন চলাকালীন বাবার অ্যাকাউন্টে এক ছেলে মালিকের কাছ থেকে অগ্রিম ১০ হাজার টাকা ধার করে পাঠালে তা ব্যাংক কর্তৃপক্ষ অ্যাকাউন্ট হোল্ড করে পুরো ১০ হাজার টাকাই কেটে নিয়েছে। এখন যেন আপতত কিস্তির টাকা না কাটে তার জন্য ব্লক প্রশাসন ও ব্যাংক ম্যানেজারকে লিখিত আবেদন জানিয়েও কোনও কাজের কাজ কিছুই হয়নি বলে জানান তিনি।

প্রশ্ন অনেক-এর বিশেষ পর্ব 'দশভূজা'য় মুখোমুখি ঝুলন গোস্বামী।