স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: বেওয়ারিশ লাশ বিতর্কে কলকাতা পুরসভার প্রশাসক ফিরহাদ হাকিমের কাছে রিপোর্ট চেয়ে পাঠিয়েছিলেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনকড়। কিন্তু এব্যাপারে কোনও রকম রিপোর্ট রাজ্যপালকে দেওয়া হবে না বলে সাফ জানিয়ে দিলেন পুরসভার প্রশাসক ফিরহাদ হাকিম।

রাজ্যপালের টুইটের জবাবে প্রশাসক ফিরহাদ হাকিম বলেন, ‘রাজ্যপাল পাবলিসিটির জন্য এটা করছেন। আমি এই নিয়ে কথা বলব না। উনি যদি রাজ্যপাল হিসেবে রিপোর্ট চাইতেন আমি দিতাম। যেহেতু একটা দলের হয়ে কাজ করতে এসেছেন, তাই আমি কোনও রিপোর্ট দেব না, কথাও বলব না।”

ফিরহাদ এও জানিয়েছেন যে, রাজ্যপালের আহ্বান সত্ত্বেও তিনি দেখা করতে যাচ্ছেন না রাজভবনে। এ বিষয়ে ফিরহাদ বলেন, ‘শনিবার ১১টায় আমি যাব না ওনার সঙ্গে দেখা করতে। তাহলে তো দিলীপ ঘোষ ডাকলেও তার অফিসে যেতে হবে।”

প্রসঙ্গত, বুধবার সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি ভিডিও ভাইরাল হয়। তাতে দেখা যায়, গড়িয়ার আদি মহাশ্মশানে একজন কর্মী আঁকশি দিয়ে টেনে ১৩টি পচা-গলা মৃতদেহ গাড়িতে তুলছেন। সেই গাড়িটির গায়ে কলকাতা পুরসভা লেখা ছিল। এই ভিডিও ভাইরাল হওয়ার পরে বিতর্ক ছড়ায় রাজ্যজুড়ে।

গোটা ঘটনাটিকে অসংবেদনশীল এবং অমানবিক বলে উল্লেখ করেন রাজ্যপাল। এ নিয়ে পুরসভার প্রশাসক ফিরহাদ হাকিমের কাছে ব্যাখ্যা চেয়েছেন বলে জানান ধনখড়।

এরপরই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে নিশানা করেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনকড়। টুইটারে তিনি লেখেন, “মর্মাহত! ভিডিয়োতে মৃতদেহ টেনে নিয়ে যাওয়ার হৃদয়বিদারক নির্মম দৃশ্য দেখে জনমনসে যে ক্ষোভের সঞ্চার হয়েছে, তাতে গভীর ভাবে উদ্বিগ্ন বোধ করছি।

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকারের কাজে আমি স্তম্ভিত। কলকাতা পুরসভার চেয়ারম্যান (প্রশাসক) এবং পুরসভা কমিশনারের কাছে এ নিয়ে ব্যাখ্যা চেয়েছি।”

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ