কলকাতা: কলকাতা মেডিক্যাল কলেজে ট্রলি থেকে রাস্তায় আছড়ে পড়ল করোনা আক্রান্ত মৃত দেহ৷ এই ঘটনায় তদন্তের আশ্বাস দিয়েছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ৷ জানা গিয়েছে, বৃহস্পতিবার দুপুরে কলকাতা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের গ্রীন বিল্ডিং থেকে মর্গে নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল আক্রান্ত মৃত দেহ৷

সেই সময় ট্রলি থেকে রাস্তায় আছড়ে পড়ে ওই মৃত দেহ৷ যদিও মাটি থেকে ফের তুলে ট্রলি করে মর্গে নিয়ে যাওয়া হয়৷ এই ঘটনায় প্রশ্ন উঠেছে, করোনা আক্রান্ত মৃত দেহ কেন ট্রলিতে করে নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল৷ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, ট্রলিতে চাপিয়ে করোনা আক্রান্ত মৃতদেহ নিয়ে যাওয়ার কথা নয়৷

কারণ মর্গে নিয়ে যাওয়ার জন্যে বরাদ্দ রয়েছে একটি শববাহী গাড়ি। করোনা আক্রান্ত কেউ মারা গেলে সেই গাড়িতে করেই মৃতদেহ নিয়ে যাওয়ার কথা৷ ঠিক কি ঘটেছিল তার জন্য ঘটনার তদন্ত করা হবে৷ অভিযোগ প্রমাণিত হলে শাস্তির কথাও জানানো হয়েছে।

অভিযোগ, একজন চুক্তিভিত্তিক কর্মী ট্রলিতে চাপিয়ে করোনা আক্রান্ত ওই মৃতদেহ নিয়ে যাচ্ছিল৷ সেই সময় ট্রলি থেকে রাস্তায় আছড়ে পড়ে মৃত দেহ৷ তারপর সেখান থেকে তুলে নেওয়া হয়৷

আরও জানা গিয়েছে,সুপারের অফিসের ঠিক মুখে যে রাস্তায় প্রতি মুহূর্তে যাতায়াত করছেন করোনা আক্রান্ত রোগীদের আত্মীয়রা, অন্যান্য অফিশিয়াল লোকজন, হাসপাতালের চিকিৎসক, নার্স ও স্বাস্থ্যকর্মীরা, অবাক কাণ্ড যে সেটি কোনওভাবে তারপর আর স্যানিটাইজও করা হয়নি৷

যদিও হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, ওই এলাকা স্যানিটাইজ করার কথা৷ এর আগে ভরদুপুরে করোনা ওয়ার্ডে পিপিই পরে ঢুকে করোনা আক্রান্ত এক মহিলার সোনার হার-আংটি ছিনতাইয়ের অভিযোগ উঠেছিল কলকাতা মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে।

সেই ঘটনায় প্রশ্ন উঠেছিল হাসপাতালে রোগীদের নিরাপত্তা নিয়ে। পুলিশ তদন্তে নেমে অবশ্য চুক্তিভিত্তিক অল্পসময়ের ২ কর্মী-সহ চারজনকে গ্রেফতার করেছিল৷ দিন কয়েক আগেই এনআরএস হাসপাতালে মৃতদেহ হুক দিয়ে টেনে নিয়ে যাওয়ার ভিডিয়ো ভাইরাল হয়েছিল সোশ্যাল মিডিয়ায়। এবার মেডিক্যালের কর্মীদের অমানবিকতায় হতবাক মেডিক্যালে ভর্তি থাকা করোনা রোগী থেকে শুরু করে তাদের আত্মীয়রা৷

প্রশ্ন অনেক: দশম পর্ব

রবীন্দ্রনাথ শুধু বিশ্বকবিই শুধু নন, ছিলেন সমাজ সংস্কারকও