কোচবিহার: মুখ্যমন্ত্রীর হস্তক্ষেপে এবার সমস্যা মিটতে চলেছে কোচবিহার জেলার দেবত্র ট্রাস্ট বোর্ডের। সংস্থার আর্থিক সমস্যা মেটাতে পর্যটন দফতরের তরফ থেকে ৬৭ লক্ষ টাকা বরাদ্দ করা হয়েছে। সরকারের এই উদ্যোগে স্বভাবতই খুশি সংস্থার কর্মীরা। জানা গিয়েছে কোচবিহারে মহারাজাদের শাসনকালে তাঁরা বিভিন্ন মন্দির  নির্মান করেছিলেন। যা ছড়িয়ে রয়েছে কোচবিহার জেলার বিভিন্ন এলাকা ছাড়াও বাইরের রাজ্যেও।

সেইসময় কোচবিহার রাজ্য এই মন্দিরগুলির পুজো ও রক্ষনা-বেক্ষনের দায়িত্বে ছিল। পরবর্তীকালে কোচবিহার পশ্চিবঙ্গের জেলা হিসেবে পরিণত হলে মহারাজার সঙ্গে চুক্তির মাধ্যমে এই মন্দিরগুলির দেখাশোনার দায়িত্ব গিয়ে পরে দেবত্র ট্রাষ্ট বোর্ডের উপর, যা পর্যটন দফতরের নিয়ন্ত্রণে রাখা হয়। বেশ কিছুদিন ধরেই দেবত্র ট্রাষ্ট বোর্ডের অধীনে থাকা মদন মোহন মন্দিরসহ বাকি মন্দিরগুলির নিত্যপুজোর ও রক্ষানা বেক্ষণের খরচ দেওয়া বন্ধ করে দেয় পর্যটন দফতর।এই পরিস্থিতিতে চরম আর্থিক সমস্যার মধ্যে পড়ে দেবত্র ট্রাষ্ট বোর্ড। কোনক্রমে ভক্তদের দক্ষিনার টাকা খরচ করে চলত নিত্য পুজা।

এই পরিস্থিতিতে কোচবিহার দক্ষিণ কেন্দ্রের বিধায়ক মিহির গোস্বামী নিজে পর্যটন মন্ত্রী গৌতম দেবের সঙ্গে দেখা করেন। তাছারাও সংস্থার কর্মীরাও উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন মন্ত্রী রবীন্দ্রনাথ ঘোষের সঙ্গে দেখা করেন। এরপর সমস্যার সমাধান করা হয়। কোচবিহার দক্ষিণ কেন্দ্রের বিধায়ক মিহির গোস্বামী বলেন কোচবিহারের মদন মোহন মন্দিরের সঙ্গে এখানকার মানুষের একটা আবেগ রয়েছে বহুদিন ধরেই। বিষয়টি মুখ্যমন্ত্রীর নজরে নিয়ে আসা হলে তিনি সমস্যা সমাধানে উদ্যোগী হন৷ তারপরই পর্যটন দফতর এই টাকা বরাদ্দ করে।