বাংলায় পার্শ্বশিক্ষকদের আন্দোলন

তিমিরকান্তি পতি, বাঁকুড়াঃ বেতন কাঠামোর ক্ষেত্রে ‘বৈষম্য’, ষষ্ঠ বেতন কমিশনের সিদ্ধান্ত ও প্রয়োগে ত্রুটির অভিযোগ ও বদলীর ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট শিক্ষকের ইচ্ছা, সিনিয়ারিটি, অসুস্থতা, দূরত্বকে প্রাধাণ্য দেওয়া সহ ছ’দফা দাবিতে আন্দোলনে নামলো উস্থি ইউনাইটেড প্রাইমারী টিচার্স ওয়েরফেয়ার অ্যাসোসিয়েশান।

বৃহস্পতিবার ওই সংগঠনের বাঁকুড়া জেলা শাখার পক্ষ থেকে জেলা বিদ্যালয় পরিদর্শকের অফিসের সামনে বিক্ষোভ সমাবেশ করেন ও তাদের দাবীপত্র তুলে দেন।

উস্থি ইউনাইটেড প্রাইমারী টিচার্স ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশানের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, গত ১২ থেকে ২৬ জুলাই বিকাশ ভবনের সামনে রাজ্যের প্রাথমিক শিক্ষকরা তাদের উপর ঘটতে থাকা দীর্ঘদিনের বেতন বৈষম্য ও বঞ্চনা দূর করার দাবি নিয়ে অবস্থান ও অনশনে বসেন।

এই অবস্থায় রাজ্য সরকার বেতনক্রম উত্তরণে বাধ্য হলেও সরকারী সেই নির্দেশিকা অতীব সংক্ষিপ্ত ও অস্পষ্ট। আর ঐ আদেশনামা বলবৎ করে সংশ্লিষ্ট শিক্ষকদের নতুন করে বঞ্চনার মুখে ফেলা হয় বলে অভিযোগ।

এবিষয়ে একাধিকবার শিক্ষা দফতরে আবেদন নিবেদন করলেও কোন কাজ হয়নি বলে আন্দোলনকারী শিক্ষক সংগঠনের তরফে জানানো হয়েছে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।