ঢাকা ও থিম্পু: যখন ছাত্র হিসেবে এসেছিলেন তখনকার কথা তো আলাদা৷ এবার আসছেন প্রধানমন্ত্রী হিসেবে৷ স্বাভাবিকভাবেই বাংলা জানা ভুটানি প্রধানমন্ত্রীকে সাড়ম্বরে বরণ করতে প্রস্তুত বাংলাদেশ সরকার৷ পয়লা বৈশাখ (পহেলা বৈশাখ) তাঁর ঢাকা সফর শুরু৷ আবারও বাংলা বর্ষবরণের দিন দেখতে মুখিয়ে আছি-ঘনিষ্ঠ মহলে এমনই জানিয়েছেন ভুটানের প্রধানমন্ত্রী লোটে শেরিং৷

আগামী ১৪ এপ্রিল সকালে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক কনভেনশন সেন্টারে আয়োজিত ‘সুরের ধারার পহেলা বৈশাখ’ অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকবেন বাংলা জানা ভুটানি প্রধানমন্ত্রী লোটে শেরিং। এমনই জানাচ্ছে বাংলাদেশের বিদেশ মন্ত্রক৷

আরও পড়ুন : মোদীকে ফেরাতে বিজেপির সংকল্পপত্র ঘোষণার সময় লোডশেডিং নিয়ে প্রশ্ন

থিম্পুর বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে দেশটির প্রধানমন্ত্রীর গুরুত্বপূর্ণ বাংলাদেশ সফরের বিষয়৷ আর ঢাকার বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যম জানাচ্ছে, আগামী ১২ থেকে ১৫ এপ্রিল লোটে শেরিং আসছেন। তিনদিনের এই সফরে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী সেখ হাসিনা ও ভুটানের প্রধানমন্ত্রী লোটে শেরিংয়ের মধ্যে কূটনৈতিক আলোচনা হবে৷ তেমনই সফরের মাঝে নিজের অতি পছন্দের স্থান ময়মনসিংহ যাবেন ভুটানি প্রধানমন্ত্রী৷

বাংলাদেশের পয়লা বৈশাখ বরণে তিনি আগেও অংশ নিয়েছেন৷ ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ এবং বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন ছাত্র হওয়ায় ঢাকা ও ময়মনসিংহে কাটানো ছাত্রজীবনের স্মৃতিতে আচ্ছন্ন লোটে শেরিং৷ তাঁর বন্ধুরাও অনেকেই অপেক্ষায় সেদিনের দিলখোলা বন্ধুকে ফের কাছে পেতে৷ তবে এখন তিনি প্রধানমন্ত্রী৷ স্বভাবতই তাঁর নিরাপত্তায় থাকবে কড়াকড়ি৷ তবুও ভিভিআইপি বন্ধুরা নিখাদ আড্ডা দিতে প্রস্তুত৷

আরও পড়ুন : নির্বাচনের আগে উদ্ধার ২৮১ কোটি, মধ্যপ্রদেশে চাপে কংগ্রেস সরকার

তবে শেখ হাসিনা ও লোটে শেরিংয়ের মধ্যে কূটনৈতিক আলোচনায় থাকছে- বাংলাদেশ থেকে বিশেষজ্ঞ ডাক্তার নিতে আগ্রহী ভুটান সরকার। এছাড়া শিক্ষাখাতে বিশেষ করে মেডিক্যাল কলেজে আরও ছাত্র পাঠাতে চায় বজ্র ড্রাগনের দেশ। এছাড়াও ভারতের মধ্যে দিয়ে ট্রানজিট সুবিধা পাওয়া গেলে বাংলাদেশ-ভুটান বাণিজ্য বাড়তে পারে বলে মনে করছে ঢাকা। কারণ বাংলাদেশ ও ভুটানের মাঝে ভারতের প্রায় ৫০ কিলোমিটার এলাকা পড়ছে৷