স্টাফ রিপোর্টার, মালদহ: জমি বিবাদকে কেন্দ্র করে তৃণমূল কংগ্রেস ও কংগ্রেসের মধ্যে সংঘর্ষ। আর এই ঘটনার জেরে মৃত্যু হল এক তৃণমূল কর্মীর। ঘটনায় ব্যাপক বোমাবাজি হয় বলে পরিবার ও স্থানীয়দের অভিযোগ। ঘটনাটি ঘটেছে, বৃহস্পতিবার মালদহের চাঁচোল থানার চন্দ্রপাড়া গ্রাম পঞ্চায়েতের জানিপুর গ্রামে। ঘটনার পর অভিযুক্তরা গা ঢাকা দিয়ে রয়েছে। মৃতদেহ ময়নাতদন্তের পাঠিয়ে ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, মৃতের নাম মুস্তাক শেখ(৩০)। বাড়ি ওই এলাকাতেই। স্থানীয় সূত্রে আরও জানা গিয়েছে, মৃত ব্যাক্তি সক্রিয় তৃণমূলের কর্মী ছিলেন। মৃতের পরিবারের সদস্যরা জানান, বহুদিন থেকেই তাদের তিন কাঠা জমি নিয়ে হাবিবুর রহমানের সঙ্গে বিবাদ চলছিল। এই নিয়ে গ্রামে একাধিকবার সালিশী সভাও হয়। এরপরেও হাবিবুর বেশ কয়েকবার তার দলবল নিয়ে ওই জমিটি দখল করার চেষ্টা করে। সেই সময় গ্রামবাসী ও মুস্তাক বাধা দিলে তারা সেখান থেকে পালিয়ে যায়। এই নিয়ে দুই পরিবারের মধ্যে বিবাদ ধীরে ধীরে চরম আকার নিচ্ছিল। এরই মাঝে বুধবার বিকেল থেকেই সেই বিবাদ চরম আকার নেই।

অভিযোগ, এরপরই বুধবার রাত্রিবেলা মুস্তাককে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে গিয়ে হাঁসুয়া দিয়ে কোপাতে থাকে। সেই সময় মুস্তাক পালাতে গেলে তাঁকে লক্ষ্য করে হাবিবুর রহমানের দলবল বোমা ছুঁড়তে শুরু করে। ঘটনায় মুস্তাক গুরুতর আহত অবস্থায় মাটিতে লুটিয়ে পরে। বোমার শব্দ শুনে গ্রামবাসীরা ছুটে আসতে হাবিবুর রহমান সহ তার দলবল ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যায়। রক্তাক্ত অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে স্থানীয় চাঁচোল সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসকরা তাকে মৃত বলেঘোষণা করেন।

মৃতের শরীরের বাম হাতের দিকে হাঁসুয়ার কোপ রয়েছে। মৃতের পরিবারের অভিযোগ, অভিযুক্তরা কংগ্রেস আশ্রিত দুষ্কৃতী। তারা ওই এলাকায় দাপিয়ে বেড়ায়। তাদের ক্ষমতা বলে এদিন মোস্তাকের ওপর হামলা চালিয়ে খুন করেছে। তাদের কঠোর শাস্তির দাবি জানাচ্ছি।

জেলা তৃণমূলের কার্যকরী সভাপতি দুলাল সরকার বলেন, “আমাদের একজন সক্রিয় কর্মীকে কংগ্রেস আশ্রিত দুষ্কৃতীরা খুন করেছে। মালদহ জেলায় কংগ্রেসের পায়ের তলার মাটি সরে গিয়েছে। আর যে কারণে যে কোনও ছোটখাটো ঘটনা ঘটলেই আমাদের কর্মীদের ওপর হামলা করছে খুন করছে। আমরা প্রশাসনকে বলেছি অভিযুক্তদের দ্রুত গ্রেফতার করতে হবে।”

এলাকার বিধায়ক অলবিরুনি জুলকার লাইন বলেন, “পারিবারিক বিবাদকে তৃণমূল কংগ্রেস ও রাজনৈতিক রঙ চাপানোর চেষ্টা করছে। পাশাপাশি ওই দলে গোষ্ঠী কোন্দল রয়েছে। সেই কারণে এই ঘটনা ঘটে থাকতে পারে। মালদহে কংগ্রেস শক্তিশালী সেই কারণেই তৃণমূল কংগ্রেস রাজ্যের শাসক দল তাদের ওপর প্রতিনিয়ত মিথ্যা ও ভিত্তিহীন অভিযোগ করে আসছে। প্রশাসন সঠিক ভাবে তদন্ত করলে সমস্ত পরিষ্কার হয়ে যাবে।”

চাঁচোলের এসডিপিও সজল কান্তি বিশ্বাস বলেন,”মৃতদেহ ময়নাতদন্তের জন্য মালদহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। অভিযুক্তদের খোঁজে তল্লাশি চলছে।”

কলকাতার 'গলি বয়'-এর বিশ্ব জয়ের গল্প