কলকাতা: চিনা মাঞ্জায় তৈরি ঘুড়ির সুতো গলায় জড়িয়ে অনেকেই আহত হয়েছেন৷ এমনকি প্রাণহানির ঘটনাও ঘটেছে৷ তারপরও নিষিদ্ধ চিনা মাঞ্জার মজুত ও বিক্রি বন্ধ হয়নি৷ গোপন সূত্রে খবর পেয়ে কলকাতায় অভিযান চালায় লালবাজার গুন্ডা দমন শাখা৷ স্থানীয় পুলিশ ও প্রশাসনকে নিয়ে ওই অভিযান চালানো হয়৷

প্রাণঘাতী চিনা মাঞ্জা মজুত ও বিক্রি করার অপরাধে গ্রেফতার করা হয় ১২ জনকে৷ বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে ৫৩ টি ঘুড়ি, ৭৬টি লাটাইসহ প্রচুর চিনা মাঞ্জার সুতো৷ সম্প্রতি চিনা মাঞ্জায় তৈরি ঘুড়ির সুতো গলায় জড়িয়ে প্রাণ হারান এক স্কুটার চালক। মর্মান্তিক ঘটনাটি ঘটেছিল এজেসি বোস ফ্লাইওভারে। মৃতের নাম আখতার খান (৪০)। তি‌নি খিদিরপুরের বাসিন্দা।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছিল, হেস্টিংসের দিক থেকে পার্ক সার্কাসের দিকে যাচ্ছিলেন ওই ব্যক্তি। পার্ক সার্কাস সাত মাথার মোড়ে উড়ালপুল থেকে নামার মুখেই তাঁর গলায় ঘুড়ির সুতো জড়িয়ে যায়। ফ্লাইওভারের সিসি ক্যামেরার ফুটেজ দেখে পুলিশ প্রাথমিক ভাবে সেটা জানতে পেরেছে। পুলিশের অনুমান ফাঁকা রাস্তা থাকায় স্কুটারের গতি বেশি ছিল। চালক আখতার খানের মাথায় হেলমেট ছিল।

কিন্তু সুতো গলার নীচের দিকে আটকে যায়। আটকে যাওয়া সুতো নিয়েই স্কুটার এগিয়ে যায় এবং ধারালো চিনা মাঞ্জার সুতো গলায় গভীর ভাবে ব্লেডের মতো কেটে বসে যায়। পুলিশ জানিয়েছে, সুতো কেটে তাঁকে চিত্তরঞ্জন ন্যাশনাল মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়৷ সেখানে নিয়ে গেলে চিকিৎসকরা তাঁকে মৃত বলে ঘোষণা করেন৷

কলকাতার 'গলি বয়'-এর বিশ্ব জয়ের গল্প