লোকসভা কেন্দ্র: দক্ষিণ মালদহ

মালদহকে প্রয়াত কংগ্রেসের কিংবদন্তি নেতা গনিখান চৌধুরীর গড় বলা হয়৷ এই কেন্দ্র বরাবরই কংগ্রেসের দখলে৷ ২০১৪ সালের নির্বাচনে উত্তরবঙ্গের এই লোকসভা কেন্দ্রে গনিখানের ভাই আবু হাসেম খান চৌধুরী জয়ী হয়েছিলেন৷এবারও তিনি এই কেন্দ্রে কংগ্রেসের প্রার্থী৷

১৯’এর নির্বাচনে এই কেন্দ্রে প্রার্থীদের নাম:

তৃণমূল কংগ্রেস প্রার্থী: মোয়াজ্জেম হোসেন

কংগ্রেস প্রার্থী: আবু হাসেম খান চৌধুরী(ডালু)

বিজেপি প্রার্থী: শ্রীরূপা চৌধুরী

লোকসভা কেন্দ্রের ভোটার সংখ্যা:

এই কেন্দ্রের অধীনে সাতটি বিধানসভা কেন্দ্র:

মানিকচক, ইংরেজবাজার, মোথাবাড়ি, সুজাপুর, বৈষ্ণবনগর, ফারাক্কা, সামসেরগঞ্জ

২০১৬ সালের বিধানসভা নির্বাচনে কেন্দ্রভিত্তিক ফলাফল:

মানিকচক: এই বিধানসভা কেন্দ্রে জয়ী হয়েছিলেন কংগ্রেস প্রার্থী মহঃ মোত্তাকিন আলম৷তাঁর প্রাপ্ত ভোট ৭৮,৪৭২ হাজার ভোট৷ দ্বিতীয় স্থানে ছিলেন তৃণমূল কংগ্রেস প্রার্থী সাবিত্রী মিত্র৷ তাঁর প্রাপ্ত ভোট ৬৫,৮৬৯ হাজার৷২০,৫৪৯ হাজার ভোট পেয়ে তৃতীয় স্থানে ছিলেন বিজেপি প্রার্থী শিবেন্দু শেখর রায়৷

দল প্রাপ্ত ভোট
কংগ্রেস ৭৮,৪৭২
তৃণমূল কংগ্রেস ৬৫,৮৬৯
বিজেপি ২০,৫৪৯

ইংরেজবাজার: এই বিধানসভা কেন্দ্রে নির্দল প্রার্থী নীহার রঞ্জন ঘোষ জয়ী হয়েছিলেন৷ তাঁর প্রাপ্ত ১,০৭,১৮৩ হাজার ভোট৷দ্বিতীয় স্থানে ছিলেন তৃণমূল কংগ্রেসের কৃষ্ণেন্দু নারায়ন চৌধুরী৷তাঁর প্রাপ্ত ভোট ৬৭, ৪৫৬ হাজার৷তৃতীয় স্থানে ছিলেন বিজেপি প্রার্থী সুমন বন্দ্যোপাধ্যায়৷ তিনি পেয়েছিলেন ২৩,১৭১ হাজার ভোট৷

দল প্রাপ্ত ভোট
নির্দল ১,০৭,১৮৩
তৃণমূল কংগ্রেস ৬৭, ৪৫৬
বিজেপি ২৩,১৭১

মোথাবাড়ি: এই বিধানসভা কেন্দ্রে কংগ্রেস প্রার্থী সাবিনা ইয়াসমিন ৬৯,০৮৯ হাজার ভোট পেয়ে জয়ী হয়েছিলেন৷দ্বিতীয় স্থানে ছিলেন তৃণমূল কংগ্রেসের নজরুল ইসলাম৷তাঁর প্রাপ্ত ভোট ৩০,৯১৫ হাজার৷বিজেপি প্রার্থী শ্যাম চাঁদ ঘোষ ছিলেন তৃতীয় স্থানে৷ তাঁর প্রাপ্ত ভোট ২৭, ৩০৯ হাজার৷
গ্রাফিক্স

দল প্রাপ্ত ভোট
কংগ্রেস ৬৯,০৮৯
তৃণমূল কংগ্রেস ৩০,৯১৫
বিজেপি ২৭, ৩০৯

সুজাপুর: এই বিধানসভা কেন্দ্রে কংগ্রেস প্রার্থী ইশা খান চৌধুরী জয়ী হয়েছিলেন৷ তাঁর প্রাপ্ত ভোট ৯৭,৩৩২ হাজার৷ তৃণমূল কংগ্রেসের আবু নাসের খান চৌধুরী ৫০,২৫২ হাজার ভোট পেয়ে দ্বিতীয় স্থানে ছিলেন৷তৃতীয় হয়েছিলেন বিজেপির নন্দন কুমার ঘোষ৷তাঁর প্রাপ্ত ভোট ১০,৩৯৩ হাজার৷
গ্রাফিক্স

দল প্রাপ্ত ভোট
কংগ্রেস ৯৭,৩৩২
তৃণমূল কংগ্রেস ৫০,২৫২
বিজেপি ১০,৩৯৩

বৈষ্ণবনগর: এই কেন্দ্রে জয়ী হয়েছিলেন বিজেপি প্রার্থী স্বাধীন কুমার সরকার৷তাঁর প্রাপ্ত ভোট ৭০,১৮৫ হাজার৷ কংগ্রেস প্রার্থী আজিজুল হক পেয়েছিলেন ৬৫,৬৮৮ হাজার ভোট৷ তিন নম্বরে ছিলেন তৃণমূল কংগ্রেসের অসিত বোস৷ তিনি পেয়েছিলেন ৪০,২৬২ হাজার ভোট৷
গ্রাফিক্স

দল প্রাপ্ত ভোট
বিজেপি ৭০,১৮৫
কংগ্রেস ৬৫,৬৮৮
তৃণমূল কংগ্রেস ৪০,২৬২

ফারাক্কা: এই কেন্দ্রে কংগ্রেস প্রার্থী মইনুল হক ৮৩,৩১৪ হাজার ভোট পেয়ে জয়ী হয়েছিলেন৷দ্বিতীয় স্থানে ছিলেন তৃণমূল কংগ্রেসের প্রার্থী মহঃ মুস্তাফা৷ তাঁর প্রাপ্ত ভোট ৫৫,১৪৭ হাজার৷তৃতীয় স্থানে ছিলেন বিজেপির ইন্দ্রনাথ উপাধ্যায়৷ তাঁর প্রাপ্ত ভোট ১৫, ৯৫২ হাজার৷

দল প্রাপ্ত ভোট
কংগ্রেস ৭৮,৪৭২
তৃণমূল কংগ্রেস ৬৫,৮৬৯
বিজেপি ২০,৫৪৯

সামসেরগঞ্জ: এই কেন্দ্রে তৃণমূল কংগ্রেস প্রার্থী আমিরুল ইসলাম জয়ী হয়েছিলেন৷ তাঁর প্রাপ্ত ভোট ৪৮,৩৮১ হাজার৷ দ্বিতীয় হয়েছিলেন বামফ্রন্ট প্রার্থী তৌয়াব আলি৷ তাঁর প্রাপ্ত ভোট ৪৬,৬০১ হাজার৷ তৃতীয় স্থানে ছিলেন নির্দল প্রার্থী রেজাউল হক৷ তাঁর প্রাপ্ত নম্বর ৪২,৩৮৯ হাজার৷

দল প্রাপ্ত ভোট
তৃণমূল কংগ্রেস ৪৮,৩৮১
বামফ্রন্ট ৪৬,৬০১
নির্দল ৪২,৩৮৯

উল্লেখ্য, ২০১৬ সালের বিধানসভা নির্বাচনে অধিকাংশই আসনেই নিজেদের মধ্যে সমঝোতা করে লড়েছিল কংগ্রেস ও বামফ্রন্ট৷ তাই বাম ও কংগ্রেস প্রার্থীরা যে ভোট পেয়েছে সেটা দু-দলের জোটফল৷ আলাদা লড়াই করলে কংগ্রেস সাতটি আসনে প্রার্থী দিত এবং ভোট ভাগাভাগির ফলে বামেদের ভোট কমত৷ তবে এবার নির্বাচনে দুই দলই আলাদা লড়লেও এই কেন্দ্রে বামেরা প্রার্থী দেয়নি৷

২০১৬ সালের সাতটি বিধানসভা ভোটের ফলাফল বিচার করলে দেখা যাচ্ছে দক্ষিণ মালদহ লোকসভা কেন্দ্রে এগিয়ে রয়েছে কংগ্রেস৷এই কেন্দ্রে কংগ্রেস চারটি আসন, তৃণমূল, বিজেপি একটি করে আসন পেয়েছিল৷ বাকি একটি আসনে জিতেছিল নির্দল প্রার্থী৷ পরে ইংরেজবাজার কেন্দ্রের জয়ী নির্দল বিধায়ক নীহার রঞ্জন ঘোষ তৃণমূলে যোগ দিয়েছেন৷ এছাড়া মোথাবাড়ি কেন্দ্রের কংগ্রেস বিধায়ক সাবিনা ইয়াসমিনও তৃণমূলে যোগ দিয়েছেন৷এবার কেন্দ্রটি নিজেদের দখলে রাখাটা কংগ্রেসের কাছে যেমন চ্যালেঞ্জের তেমনই তৃণমূল-বিজেপিও কংগ্রেসের এই গড়কে নিজেদের দখলে আনতে মরিয়া৷