ছবি- শশী ঘোষ

শিলিগুড়ি:  নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন, এনপিআর সহ একাধিক ইস্যুতে দেশজুড়ে প্রবল চাপের মুখে বিজেপি। কার্যত কোনঠাসা মোদী-শাহরা। যার প্রভাব পড়েছে ভোট বাক্সেও। গত লোকসভা নির্বাচনের পর থেকে দেশের যে সমস্ত রাজ্যে ভোট হয়েছে সেখানেই হেরেছে বিজেপি। শুধু দেশেই নয়, বাংলাতেও এনপিআর, সিএএ ইস্যুতে কোনঠাসা বঙ্গ বিজেপি। বাংলাতেও হারের স্বাদ পেয়েছে বিজেপি। এমনকি আতঙ্কে বহু বিজেপি নেতা-কর্মী দল ছেড়ে তৃণমূলের হাত শক্ত করেছে। এবার বাংলাতে নিজেদের শক্ত ঘাঁটি দার্জিলিংয়ে বড় ধাক্কা বিজেপির।

দার্জিলিঙের সুখিয়াপোখরিতে বিজেপি ছেড়ে গোর্খা জনমুক্তি মোর্চার বিনয় শিবিরে যোগ দিল ১০০ পরিবার। সুখিয়াপোখরি কমিউনিটি হলে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে পরিবারগুলির সদস্যদের হাতে মোর্চার পতাকা তুলে দেন সভাপতি বিনয় তামাং। শুধু তাই নয়, এদিন এই যোগদানের সঙ্গে সঙ্গে ওই এলাকায় বিজেপি একমাত্র দলীয় কার্যালয়টিও বন্ধ হয়ে গিয়েছে বলে জানান যোগদানকারী বিজেপি সমর্থকেরা। পাহাড়ের রাজনীতিতে একটা শক্ত জায়গা তৈরি করেছিল বিজেপি। এবার সেখানেই হানা দিল মোর্চার বিনয় তামাং শিবির। কার্যত পাহাড়ে ধস বিজেপি শিবিরের।

বিনয় তামাং জানিয়েছেন, বিজেপির কারণে মানুষ আতঙ্কে রয়েছে। নাম বাদ হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা। শুধু তাই নয়, বিজেপির কাজে পাহাড়ের মানুষ একেবারে বিরক্ত হয়ে উঠেছে। আর সেই কারণে বিজেপিতে বিজেপি কর্মীরা নাম লিখিয়েছেন বলে দাবি তামাংয়ের। একই সঙ্গে তিনি জানিয়েছেন, বিজেপি ছেড়ে আসা কর্মীরা পাহাড়ে আর রাজনীতি চান না, এবার তাঁদের চাই উন্নয়ন। আর সেই উন্নয়নের সামিল হতেই বিজেপি ছেড়ে কর্মীরা তৃণমূলে যোগ দিয়েছেন বলেও দাবি তাঁর। জানা গিয়েছে, আগামী কয়েকদিনের মধ্যেই পাহাড়ের উন্নয়নমূলক কাজ নিয়ে রাজ্য সরকারের সঙ্গে আলোচনা করতে কলকাতায় যাবেন বলে জানিয়েছন বিনয় তামাং।‌

অন্যদিকে, কালিম্পঙেও এনআরসি, সিএএ এবং এনপিআর বিরোধী অনির্দিষ্টকালব্যাপী ধর্না শুরু হয়েছে। সাধারণ মানুষের পাশাপাশি স্থানীয় রাজনৈতিক দল এই আন্দোলন শুরু করেছেন সেখানে। আর তাঁদের পাশেই দাঁড়িয়েছে তৃণমূল।