ঢাকাঃ   উৎক্ষেপণের প্রথম ধাপ ‘লঞ্চ অ্যান্ড আরলি অরবিট ফেইজ (এলইওপি)’ সফলতার সঙ্গে শেষ করল বাংলাদেশের প্রথম বাণিজ্যিক কৃত্রিম উপগ্রহ ‘বঙ্গবন্ধু-১’। বাংলাদেশ কমিউনিকেশন স্যাটেলাইট কোম্পানি লিমিটেডের ব্যবস্থায় থাকা অন্যতম আধিকারিক সাইফুল ইসলাম স্থানীয় সংবাদমাধ্যমকে জানান, “উৎক্ষেপণের ১০ দিনে পর প্রথম ধাপ সফলতার সঙ্গে শেষ হয়েছে। আগামীকাল সকালের মধ্যে এর নিজস্ব কক্ষপথে (১১৯.১ পূর্ব দ্রাঘিমাংশে অরবিটাল স্লট) স্থাপন হবে।”

গত ১২ মে সকালে যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডার কেনেডি স্পেস সেন্টার থেকে সফলভাবে উৎক্ষেপিত হয় বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট। স্যাটেলাইটের উৎক্ষেপণ প্রক্রিয়া মূলত দুটি ধাপে শেষ হয়। প্রথম ধাপটি হল ‘লঞ্চ অ্যান্ড আরলি অরবিট ফেইজ (এলইওপি)’ এবং দ্বিতীয় ধাপ হচ্ছে ‘স্যাটেলাইট ইন অরবিট’। এলইওপি ধাপে ১০ দিন এবং পরের ধাপে ২০ দিন লাগে। দুই-একদিনের মধ্যে বাংলাদেশের স্যাটেলাইট গ্রাউন্ড স্টেশন থেকে এর নিয়ন্ত্রণ কাজ শুরু করা হবে বলে আশা প্রকাশ করেন সাইফুল।

দ্বিতীয় ধাপে স্যাটেলাইটটি পূর্ণ নিয়ন্ত্রণে আনতে প্রায় ২০ দিন লাগে। স্যাটেলাইটটি সম্পূর্ণ চালু হওয়ার পর এর নিয়ন্ত্রণ বাংলাদেশের গ্রাউন্ড স্টেশনে হস্তান্তর করা হবে।

বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের গ্রাউন্ড স্টেশন স্থাপন করা হয়েছে গাজীপুর জেলার জয়দেবপুর ও রাঙামাটির বেতবুনিয়ায়। বিটিআরসির নেওয়া তিন হাজার কোটি টাকার একটি প্রকল্পের আওতায় ফরাসি সংস্থা তালিস এলিনিয়া স্পেস এই স্যাটেলাইটটি তৈরি করে, এর উৎক্ষেপণ হয় যুক্তরাষ্ট্রের বেসরকারি মহাকাশ গবেষণা সংস্থা স্পেসএক্সের মাধ্যমে। সরকারের আশা, বর্তমানে বিদেশি স্যাটেলাইটের ভাড়া বাবদ যে ১৪ মিলিয়ন ডলার ব্যয় হয়, এ উপগ্রহ উৎক্ষেপণের সেই অর্থ সাশ্রয় হবে। বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটে ৪০টি ট্রান্সপন্ডার থাকবে, যার ২০টি বাংলাদেশের ব্যবহারের জন্য রাখা হবে এবং বাকিগুলো ভাড়া দিয়ে বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন সম্ভব হবে।