ট্যাটুর জনপ্রিয়তা নিয়ে আলাদা করে কিছু বলার অর্থ অযথা শব্দ খরচ৷ অনেকেই এখন কমবেশি ট্যাটু ফিভারে ভুগছেন৷ লাল, কালো, নীলের উল্কি হাতে, পায়ে, ঘাড়ে, বাহুতে করিয়ে একটু খোলামেলা পোশাক পরে ঘুরে বেড়াতে অনেকেই ইদানীং পছন্দ করছেন৷ তবে ট্যাটু করানোর আগে অবশ্যই খেয়াল রাখবেন কয়েকটি বিষয়৷ না হলে ত্বকের সমস্যায় আপনি তো নাজেহাল হবেনই, সঙ্গে ভুগবে আপনার বাড়ির লোকজনও৷ আর ফ্যাশন করা তখন উঠবে মাথায়!

১) ট্যাটু করানোর সময় চামড়ায় আঘাত লাগা স্বাভাবিক৷ কখনও কেটে গিয়ে হতে পারে রক্তপাতও৷ তাই চেষ্টা করুন এমন স্টুডিয়ো থেকে ট্যাটু করাতে যেখানে বিশেষজ্ঞরাই এই কাজ করেন এবং যাবতীয় পরিচ্ছন্নতা বজায় রাখা হয়৷

২) ট্যাটু করানোর আগে নিডল ও অন্যান্য উপকরণ নতুন ব্যবহার করছে কি না দেখে তবেই চামড়ায় ফোটাতে দেবেন৷অন্তত নিদেনপক্ষে যেন স্টেরিলাইজড করা থাকে৷ না হলে অন্যের ব্যবহার করা নিডল থেকে এডস, হেপাটাইটিস, টিউবারকিউলোসিস, টিটেনাসের  মতো রোগের সংক্রমণের সম্ভাবনা থাকে৷

৩) আপনার যদি কোনও  ধাতুতে অ্যালার্জি থাকে, তাহলে ট্যাটু করানোর আগে একটু ভাবুন৷ কারণ স্থায়িত্ব ধরে রাখার জন্য ট্যাটুর রঙ ধাতু থেকেই তৈরি করা হয়৷

৪) শরীরের খুব সংবেদনশীল জায়গায় যেমন চোখের উপর, পেটে, কানের লতিতে ট্যাটু করানো সবসময়ই রিস্কের৷ কারণ এসব জায়গায় রক্ত সঞ্চালন খুব কম থাকে৷ফলে ট্যাটু করার সময় কোনওরকম ক্ষত তৈরি হলে তা সামলানো মুশকিল হয়ে পড়ে৷

৫) ট্যাটু করানোর আগে এমন স্টুডিয়ো বেছে নিন যেখানে ট্যাটু আর পীয়ার্সিং-এর আলাদা ব্যবস্থা রয়েছে৷

৬) প্রত্যেক কাস্টমারকে ট্যাটু করানোর আগে স্টুডিয়োর লোকজন হাতের ল্যাটেক্স গ্লাভস বদলাচ্ছে কি না সেদিকে নজর রাখুন৷ যদি না বদলায় সে পথে না যাওয়াই মঙ্গল৷

৭) আপনাকে ট্যাটু করার সময় যে রঙ ব্যবহার করা হবে, তা যেন পরিষ্কার কাপে নেওয়া হয় এবং একবার ব্যবহারের পর তা ফেলে দেওয়াই বাঞ্ছনীয়৷কারণ বোতল থেকে যেমন সরাসরি ট্যাটুর রঙ  নেওয়া উচিত নয়, তেমনই ট্যাটু করার পর বাকি রঙটাও সেখানে ঢেলে রাখা স্বাস্থ্যসম্মত নয়৷

৮) যেখানে আপনি ট্যাটু করানোর কথা ভাবছেন সোখানে পরিচিত কেউ করিয়েছে কি না আগে থেকে  খোঁজখবর নিন৷ প্রয়োজনে স্টুডিয়োতে গিয়ে অন্য কারও ট্যাটু করার পুরো পদ্ধতিটা খুঁটিয়ে দেখুন (যদি কর্তৃপক্ষ অনুমতি দেয়)৷ তারপরেই সিদ্ধান্ত নিন আপনি ওই স্টুডিয়ো থেকে ট্যাটু করাবেন কি না৷

৯) শরীর থেকে ট্যাটু যদি পুরোপুরি মুছে ফেলতে চান, তাহলে আপনাকে প্লাস্টিক সার্জন বা ডার্মাটোলজিস্টের কাছে যেতে হবে৷ট্যাটু তোলার পদ্ধতিতে ব্যথা লাগার সম্ভাবনা যেমন থাকে, তেমনই পুরোটা বেশ ব্যয়বহুল৷তাই পার্মানেন্ট ট্যাটু করানোর আগে দুবার ভাবুন৷

Advertisements