ওয়াশিংটন: বিচিত্র দেশের বিচিত্র কার্যকলাপ৷টেডি বিয়ারকে ছুরি মারায় গ্রেফতার মার্কিন তরুণী৷ভাবছেন গাল-গপ্পো করছি! নাহ, এক্কেবারে সত্যি কথা৷ মার্কিন মুলুকে ঘটে যাওয়া এ এক অত্যাশ্চর্য ঘটনা৷তরুণীর নাম কারলি মেরা৷ বয়ফ্রেন্ডের উপর রেগে গিয়ে ছুরি মারলেন টেডি বিয়ারে৷টেডি বিয়ারটি উপহার দিয়েছেন কারলির বয়ফ্রেন্ড আলেকজান্ডার৷আর এতেই যত বিপত্তি৷ হাতে পড়ল হাতকড়া৷শেষমেশ ৫ হাজার মার্কিনমুদ্রার বিনিময়ে মুক্তি পেলেন ১৬ মাসের শিশুর মা কারলি৷

ঘটনার মূল প্রেক্ষাপট হল প্রেমে ধোঁকা৷ তার জেরেই কারলির মানসিক অবসাদ৷কারলির সন্দেহ ছিল প্রেমিক আলেকজান্ডার তাঁকে লুকিয়ে অন্য মেয়ের সঙ্গে প্রেমে মত্ত৷ঘটনার দিন বাড়ি থেকে বেরিয়ে আলেকজান্ডার ধূমপান করতে চাইলে, হঠাৎই কারলির সন্দেহ মাথা চাড়া দিয়ে ওঠে৷তীব্র চিৎকারে রেগেমেগে আলেকজান্ডারকে তিনি হুকুম দেন, ঘরের ভিতর থাকতে৷নাহলে অশান্তি করব্নে তিনি৷কারলির সেই রূপ দেখে ভীত আলেকজান্ডার তার প্রিয় বান্ধবী ও বন্ধুদের এসএমএস করে পুরো কাব্যটি জানান৷এসএমএসের কথা জানতে পেরেই রূদ্র মূর্তি ধরেন কারলি৷রান্না ঘরে ছুটে গিয়ে তুলে আনেন ধারাল ছুরি৷পাঁচ ফুটের টেডি বিয়ারের গায়ে রোষে এলোপাথাড়ি চালাতে থাকেন ছুরি৷আলেকজান্ডার আটকাতে গেলে তার নাকে-মুখে ঘুঁষি চালান ও হাতে কামড়ও দেন কারলি৷পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে গেলে পুলিশ ডাকতে বাধ্য হন আহত আলেকজান্ডার৷ মোটা টাকা জরিমানায় পুলিশের হাত থেকে ছাড়া পেলেও আপাতত মনোবিদদের সাহায্যপ্রার্থী কারলি৷তবে, এই ঘটনায় হতাশ হয়ে নিজেকে কারলির থেকে সরিয়ে নিয়েছেন আলেকজান্ডার৷তার একটাই দুঃখ অনেক চেষ্টার পরও এতদিনের সম্পর্ককে টিকিয়ে রাখতে পারলেন না তিনি৷এরকম মর্মান্তিক পরিণতি আশা করেননি আলেকজান্ডার৷