তমলুক: পাঁশকুড়া টাইম বোমা কান্ডে একজনকে গ্রেফতার করল পুলিশ৷ পাশাপাশি উঠে এসেছে চাঞ্চল্যকর তথ্য৷ পুলিশের দাবি,এই ঘটনায় মূল অভিযুক্তকে গ্রেফতার করেছে পাঁশকুড়া থানার পুলিশ৷ সূত্রে খবর, অভিযুক্ত পাওনাদারকে ভয় দেখানোর জন্য ইউটিউব দেখে I.E.D বিস্ফোরক মতো বানিয়ে ফেলে৷

এরপর বৃহস্পতিবার সকালে তার গোডাউনে ওই বিস্ফোরক রেখে চলে যায়৷ এরপর ফোনে হুমকি দেয়৷ ঘটনায় এলাকায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে৷ পরে পুলিশ এস তা উদ্ধার করে৷

পূর্ব মেদিনীপুর জেলার এসপি সুনীল কুমার সাংবাদিক সম্মেলন করে জানালেন, পাঁশকুড়া বোমা কাণ্ডে মূল অভিযুক্তকে ৬ ঘণ্টার মধ্যে পাঁশকুড়ার রামগড় থেকে গ্রেফতার করা হয়েছে৷ ধৃতের বাড়ি পাঁশকুড়া ঘোষপুর অঞ্চলের রামগড় গ্রামে৷

ধৃত ব্যক্তি রজত গাঁতাইত নামে একজনের কাছ থেকে ইমারতি সামগ্রী ধার নিয়েছিল৷ ধার শোধ না করার কারণে বারবার তাকে চাপ সৃষ্টি করেছিল রজত৷ এরপরই সে ওই পরিকল্পনা করে৷ ধৃতের নাম আসানুর আলী৷ বয়স ২৪ বছর৷ আসানুর পেশায় মার্বেল মিস্ত্রি৷ কর্মস্থল হায়দ্রাবাদ৷ আসানুর আলী এই ঘযনায় যে নতুন সিম ও মোবাইল ব্যবহার করেছিল৷ তা বাজেয়াপ্ত করেছে পুলিশ৷

এছাড়া বিস্ফোরক তৈরি করার কিছু সামগ্রীও উদ্ধার করা হয়েছে। প্রসঙ্গত,বৃহস্পতিবার সকালে ওই এলাকার এক প্রসিদ্ধ সিমেন্ট রড ব্যবসায়ী রজত গাঁতাইতের কাছে একটি ফোন আসে। ফোন ধরতেই এক ব্যক্তি হিন্দি ভাষাতে হুমকি দিতে থাকে বলে অভিযোগ।

শুধু তাই নয়, কার্তিকবাবুর অভিযোগ, ফোনে ওই ব্যক্তি জানায়, গোডাউনে কি আছে দেখে আসতে। শুধু তাই নয়, আরও কিছু বলতে থাকে। ফোনটি রেখেই হুড়মুড়িয়ে গোডাউনের দিকে ছুটে যান কার্তিকবাবু। আর সেখানে যেতেই চক্ষু চড়ক গাছ অবস্থা হয় ওই ব্যবসায়ীর।

দেখা যায় দুটি টাইম বোমার আকৃতির কোন বস্তু! সেটি টিক টিক করে আওয়াজও হচ্ছে। মুহূর্তে বিষয়টি গোটা এলাকায় ছড়িয়ে যায়। আর তা হতেই ফাঁকা হয়ে যায় এলাকা। তারপরই পাঁশকুড়া থানার পুলিশকে বিষয়টি জানান ওই ব্যবসায়ী।ঘটনার খবর পেয়েই ঘটনাস্থলে আসে বিশাল পুলিশবাহিনী ও বোম্ব স্কয়াড৷ এবং ওই বস্তুটি উদ্ধার করে নিয়ে যায় পুলিশ৷

প্রশ্ন অনেক-এর বিশেষ পর্ব 'দশভূজা'য় মুখোমুখি ঝুলন গোস্বামী।