মেদিনীপুর: দুই রাত পোহালেই শুরু হবে ষষ্ঠ দফার ভোট গ্রহণ। তার আগেই বিপাকে পড়লেন ঘাটাল লোকসভা কেন্দ্রের বিজেপি প্রার্থী ভারতী ঘোষ।

বৃহস্পতিবার গভীর রাতে এই প্রাক্তন দাপুটে পুলিশ অফিসারের গাড়ি থেকে উদ্ধার করা হয়েছে বিপুল পরমাণ নগদ টাকা। যার উৎস সম্পর্কে সন্তোষজনক ব্যাখ্যা একাদা ঝাড়গ্রামের পুলিশ সুপার ভারতী ঘোষ দিতে পারেননি বলে দাবি করেছে পুলিশ। সেই কারণেই সমস্ত টাকা বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে।

নির্বাচনের আগে টাকা বিলি করছে বিজেপি। পদ্ম শিবিরের হয়ে এই কাজ করছে সংঘের সেবকেরা। এই অভিযোগ গত কয়েকদিন ধরে বারবার বিভিন্ন জনসভায় দাঁড়িয়ে করে চলেছেন তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এদিন রাতে বিজেপি প্রার্থীর গাড়ি থেকে নগদ টাকা উদ্ধারের ঘটনা যেন সেটিকেও মান্যতা দিল।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, ঘাটাল লোকসভা কেন্দ্রের বিজেপি প্রার্থী ভারতী ঘোষের গাড়ি থেকে লক্ষাধিক নগদ টাকা উদ্ধার করা হয়েছে। একজন প্রার্থীর এত নগদ টাকা একসঙ্গে বহন করা নির্বাচনী বিধিভংগের সমতুল। সেই কারণেই সমগত টাকা বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে বলে জানিয়েছে পিংলা থানার পুলিশ। যদিও উদ্ধার হওয়া টাকার সিজার লিস্টে প্রার্থী ভারতী ঘোষ বা তাঁর সঙ্গে থাকা কোনও বিজেপি নেতা স্বাক্ষর করেননি।

যদিও ভারতী ঘোষের দাবি, নির্বাচন কমিশনের নির্দেশ অনুসারে একজন প্রার্থী সর্বোচ্চ ৫০ হাজার টাকা নিজের সঙ্গে রাখতে পারেন। তিনি সেই নির্দেশিকা অমান্য করেননি। কন্তু পুলিশের দাবি, উদ্ধার হয়েছে লক্ষাধিক টাকা। এই বিষয়ে ঘাটালের বিজেপি প্রার্থীর বক্তব্য, “আমাদের বিজেপি কর্মীদের উপরে পুলিশ হামলা চালাচ্ছে খবর পেয়ে এত রাতে বাইরে ছুটে এসেছিলাম। এখানে আমাদের সকলের টাকা একটা ব্যাগে রাখতে বলা হয়। তারপরে ক্যামেরা চালু করে সেই ব্যাগ আমাদের খুলতে বলে পুলিশ।”

পরিকল্পনা করেই পুলিশ তাঁকে ফাঁসিয়েছে বলে দাবি করেছেন প্রাক্তন পুলিশ সুপার ভারতী ঘোষ। এই ঘটনার মধ্যে রাজ্যের শাসক তৃণমূলের ষড়যন্ত্রের গন্ধ পাচ্ছে বিজেপি শিবির। যদিও ঘাস ফুলের নেতাদের বক্তব্য, “পুলিশ এখন নির্বাচন কমিশনের অধীনস্থ। এখানে রাজ্য প্রশাসনের কোনও হাত নেই।”

অন্যদিকে, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় কলকাতার ১২টি জায়গায় তল্লাশি চালিয়ে বিপুল পরিমাণ নগদ টাকা উদ্ধার করা হয়েছে। গোপন সূত্রে খবর পেয়ে অভিযানে নামে কলকাতা পুলিশের গোয়েন্দা বিভাগের পাঁচটি দল। জোড়াবাগান, বউবাজার, বড়বাজার, পোস্তা এলাকার মোট ১২টি জায়গায় চালানো হয় তল্লাশি। পুলিশের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে যে এই বড় বাজার এবং পোস্তা এলাকার চারটি জায়গা থেকেই উদ্ধার হয়েছে বিপুল পরিমাণ নগদ টাকা। যার মোট পরিমাণ এক কোটি ছয় হাজার। এই ঘটনায় জড়িত মোট চার ব্যক্তিকে গ্রেফতার করেছে কলকাতা পুলিশের গোয়েন্দা বিভাগ।

পচামড়াজাত পণ্যের ফ্যাশনের দুনিয়ায় উজ্জ্বল তাঁর নাম, মুখোমুখি দশভূজা তাসলিমা মিজি।