নিউ ইয়র্ক: বয়স কি তবে সত্যিই একটু একটু করে থাবা বসাচ্ছে তাঁর পারফরম্যান্সে। কোর্টে সেই পরিচিতি দাপট, চেনা মেজাজ থেকে একটু একটু করে পিছু হটছেন আধুনিক টেনিসের অবিসংবাদী নায়ক রজার ফেডেরার। ফোরহ্যান্ড হোক কিংবা দাপুটে ব্যাকহ্যান্ড। যে রজারের গোলার মত সার্ভিস একসময় নাভিশ্বাস তুলে দিত প্রতিদ্বন্দ্বীদের, ৩৮ বছরের সেই রজার কিনা ২০১৯ চার-চারটি গ্র্যান্ড স্ল্যাম থেকে ফিরছেন শূন্য হাতে। বুধবার আর্থার অ্যাশ স্টেডিয়ামে বুলগেরিয়ার গ্রিগর দিমিত্রভের কাছে হেরে ফ্লাশিং মেডোর কোয়ার্টার ফাইনাল থেকে বিদায় নিলেন সুইস কিংবদন্তি।

গ্র্যান্ড স্ল্যামহীন মরশুম এর আগেও কাটিয়েছেন আধুনিক টেনিসের বাদশা। এমনকি ২০০৮ পর লম্বা সময় ধরে যুক্তরাষ্ট্র ওপেন জিততে ব্যর্থ ২০টি গ্র্যান্ড স্ল্যামের মালিক। কিন্তু রবিবার টুর্নামেন্টের তৃতীয় বাছাই ফেডেক্স হেরে বসলেন অবাছাই বিশ্ব র‍্যাংকিংয়ে ৭৮ নম্বর গ্রিগর দিমিত্রভের কাছে। পাশাপাশি ফেডেরারকে হারিয়ে গত ২৮ বছরে সবচেয়ে কম র‍্যাংকিংয়ের প্লেয়ার হিসেবে যুক্তরাষ্ট্র ওপেনের সেমিতে পা রাখলেন বুলগেরিয়ান টেনিস প্লেয়ার। যদিও নির্ণায়ক সেটের আগে পিঠের সমস্যায় প্রায় মিনিট দশেকের টাইম আউট নেন ফেডেরার। মনে করা হচ্ছে পিঠের সমস্যায় শেষ অবধি ১০০ শতাংশ উজাড় করে দিতে পারেননি সুইস তারকা। যার ফলে তাঁর ২১ তম গ্র্যান্ড স্ল্যাম জয় অধরাই রয়ে গেল চলতি বছরে।

দিমিত্রভের পক্ষে বুধবার পাঁচ সেটের কোয়ার্টারের ফল ৩-৬, ৬-৪, ৩-৬, ৬-৪, ৬-২। তবে ম্যাচ শেষে পিঠের সমস্যাকে কোনওভাবেই অজুহাত হিসেবে খাড়া করতে চাননি ফেডেরার। তিনি বলেন ‘এই মুহূর্তটা গ্রিগরের।’ যদিও ২৯ মিনিটে প্রথম সেট জিতে কোয়ার্টারের শুরুটা এদিন ফেডেরার সুলভই করেন সুইস তারকা। এরপর দ্বিতীয় সেট ৬-৪ ব্যবধানে জিতে ম্যাচে প্রত্যাবর্তন ঘটে দিমিত্রভের। নিজের নামের প্রতি সুবিচার করে তৃতীয় সেট জিতে ফের ম্যাচে এগিয়ে যান ফেডেক্স। এরপর চতুর্থ সেটে ৪-৫ ব্যবধানে পিছিয়ে থাকা অবস্থায় পাঁচটি ব্রেক পয়েন্ট কাজে লাগাতে ব্যর্থ হন সুইস তারকা। সেই সুযোগ কাজে লাগিয়ে চতুর্থ সেটে বাজিমাত করে যান দিমিত্রভ।

এরপর পঞ্চম সেটের আগে পিঠের সমস্যায় কাবু ফেডেরার নির্ণায়ক সেটে আর মেজাজে ধরা দিতে পারেননি। শেষ অবধি ৬-২ ব্যবধানে নির্ণায়ক সেট জিতে সেমির টিকিট নিশ্চিত করে ফেলেন দিমিত্রভ। একইসঙ্গে কেরিয়ারের অষ্টম সাক্ষাতে প্রথমবার ফেডেরারের বিরুদ্ধে জয়ের স্বাদ পান বুলগেরিয়ান।

অপর কোয়ার্টার ফাইনালে সুইজারল্যান্ডের স্ট্যান ওয়ারিঙ্কাকে হারিয়ে সেমিফাইনাল নিশ্চিত করলেন রাশিয়ার ড্যানিল মেদভেদেভ। বিশ্বের পাঁচ নম্বরের অনুকূলে ম্যাচের ফল ৭-৬, ৬-৩, ৩-৬, ৬-১।