শ্রীনগর: কাশ্মীরের রাজ্যপাল এন এন ভোরার ডাকা সর্বদলীয় বৈঠকে হাজির সব দলের প্রতিনিধিরা৷ প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী ওমর আবদুল্লা ওই বৈঠকে যোগ দিয়েছেন৷ এ ছাড়া বিজেপির তরফে বৈঠকে উপস্থিত আছেন এস শর্মা, প্রদেশ কংগ্রেস প্রধান জি এ মীর প্রমুখ৷ জম্মু কাশ্মীরে চলতি রাজনৈতিক টানাপোড়েনের পরবর্তী কর্মসূচি কি হতে পারে, তার রূপরেখা ঠিক করতেই এই বৈঠক ডাকা হয়েছে বলে খবর৷

জম্মু কাশ্মীরের সরকারের পতনের একদিন পরেই সর্বদলীয় বৈঠকের ডাক দেন রাজ্যপাল৷ কাশ্মীরের রাজনৈতিক প্রেক্ষাপটে এই সিদ্ধান্ত যথেষ্ট গুরুত্বপূর্ণ বলেই মনে করছে রাজনৈতিক মহল৷ বৃহস্পতিবার এই সিদ্ধান্তের সরকারি ঘোষণা করে রাজ্যপালের অফিস৷ চলতি পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা করতেই বৈঠক ডাকা হয়েছে বলে সূত্রের খবর৷

রাজ্যপালের শাসন চলাকালীন জম্মু কাশ্মীরের বিধানসভাতেও সাময়িক স্থগিতাদেশ জারি করা হয়েছে৷ যতদিন এই রাজ্যপালের শাসন চলবে, ততদিন অধিবেশন বসবে না বলে জানানো হয়েছে৷ ২০২১ সালে মার্চে বিধানসভার মেয়াদ ফুরোনোর কথা৷

প্রসঙ্গত, কেন্দ্রের সুপারিশ মেনে বুধবার জম্মু-কাশ্মীরে রাজ্যপালের শাসনের অনুমতি দেন রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ। ফলে এখন থেকে যতদিন না জম্মু-কাশ্মীরে নতুন সরকার গঠন হচ্ছে, রাজ্যের শাসনভার সামলাবেন রাজ্যপাল এন এন ভোরা। রাষ্ট্রপতির সম্মতির পরই বুধবার দুপুরে রাজ্যের উচ্চপদস্থ সরকারি এবং নিরাপত্তা আধিকারিকদের সঙ্গে বৈঠক করেন রাজ্যপাল ভোরা।

অন্যদিকে দেশের সেনা প্রধান বিপিন রাওয়াত স্পষ্ট ভাষায় জানিয়ে দেন জম্মু-কাশ্মীরে জঙ্গি দমন অভিযান চলবে। সেনা প্রধান বুধবার বলেন, ‘রমজান মাস উপলক্ষ্যে একমাস সেনা অভিযান বন্ধ রাখার ফল সবাই দেখেছে। তাই এখন সেনা অভিযান বন্ধ রাখার কোনও প্রশ্ন নেই। অভিযান যেমন চলছিল তেমনই চলবে। রাজ্যপালের শাসনে সেনা অভিযান প্রভাবিত হবে না।’ সেনা অভিযান বন্ধে তাঁদের উপর কোনও রাজনৈতিক চাপ নেই বলেও সেনা প্রধান জানিয়েছেন। শুক্রবার সেনা অভিযানে চার জঙ্গির মৃত্যুর খবর মিলেছে।

প্রশ্ন অনেক-এর বিশেষ পর্ব 'দশভূজা'য় মুখোমুখি ঝুলন গোস্বামী।