স্টাফ রিপোর্টার, ঝাড়গ্রাম: এক করোনা যোদ্ধাকে বেধড়ক মারধর করার অভিযোগ উঠল বিজেপি আশ্রিত দুষ্কৃতীদের বিরুদ্ধে। ঝাড়গ্রাম জেলার সাঁকরাইলে ঘটনাটি ঘটেছে। জখম যুবকের নাম সনু প্রামাণিক(২৩)। পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, সাঁকরাইল ব্লকের পাথরা গ্রাম পঞ্চায়েতের বাঁকড়া গ্রামের বাঁকড়া কর্মতীর্থকে কোয়ারেন্টাইন সেন্টার করা হয়েছে। সেখানে স্থানীয় যুবক সনু প্রামাণিককে নিযুক্ত করে ব্লক প্রশাসন।

অভিযোগ, মঙ্গলবার রাতে কোয়ারেন্টাইনে থাকা ব্যক্তিদের খাবার দিতে যাওয়ার সময় পুলিশ ও সিভিক ভলেন্টিয়ারদের চোখের সামনে ১০ থেকে ১২ জন দুষ্কৃতী সনুর উপর চড়াও হয়।লোহার রড দিয়ে তাঁকে ব্যাপক মারধর করা হয়।

আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাঁকে উদ্ধার করে ভাঙাগড় গ্রামীণ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখান থেকে তাঁকে ঝাড়গ্রাম সুপার স্পেশ্যালিটি হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয়। অবস্থার অবনতি হওয়ায় তাঁকে মেদিনীপুর মেডিক্যাল কলেজে স্থানান্তরিত করা হয়েছে। ওই দুষ্কৃতীরা বিজেপি আশ্রিত বলে অভিযোগ।

সনুর বাবা লখিন্দর প্রামাণিক বলেন, “আমার ছেলেকে বিজেপির লোকজন পরিকল্পিত ভাবে মারধর করেছে। সমাজের ভালর জন্য জীবনের ঝুঁকি নিয়ে দিনরাত এক করে কাজ করে আমার ছেলে। আইনি ব্যবস্থার উপর ভরসা আছে আমার। দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানাচ্ছি।

উল্লেখ্য, সাঁকরাইল ব্লকের পাথরা গ্রাম পঞ্চায়েত বিজেপির দখলে। তাই এখানে বিজেপির যথেষ্ট প্রভাব রয়েছে। লিখিত অভিযোগের ভিত্তিতে সাঁকরাইল থানার পুলিশ আজ বুধবার চার জন বিজেপি কর্মীকে গ্রেফতার করে ঝাড়গ্রাম আদালতে তোলা হলে বিচারক তাঁদের এক দিনের জেল হেফাজতের নির্দেশ দেন।

প্রশ্ন অনেক: দশম পর্ব

রবীন্দ্রনাথ শুধু বিশ্বকবিই শুধু নন, ছিলেন সমাজ সংস্কারকও