রায়গঞ্জ-মালদহ:  বিজেপির ১২ ঘন্টার উত্তরবঙ্গ বনধে পিকেটিং করার অভিযোগে একাধিক বিজেপি নেতা, কর্মী ও সমর্থকে আটক করেছে পুলিশ। এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে উত্তেজনা দেখা দেয় রায়গঞ্জ শহরে। জোর করে বনধ সফল করার অভিযোগে পুলিশ বিজেপি নেতা অভিজিৎ যোশী, দলের মহিলা মোর্চার নেত্রী পাভেল সরকার সহ একাধিক বিজেপি কর্মীকে আটক করেছে।

বিজেপি নেতা অভিজিৎ যোশীর দাবি করেছেন, বনধ পালন করার জন্য আমরা মানুষের কাছে হাত জোড় করে অনুরোধ করছিলাম। কোনও জোর করা হয়নি। পুলিশ অন্যায় ভাবে আমাদের আটক করেছে। হেমতাবাদের বিজেপি বিধায়ক দেবেন্দ্র নাথ রায়ের অস্বাভাবিক মৃত্যুর ঘটনার পর মঙ্গলবার উত্তরবঙ্গ জুড়ে ১২ ঘন্টার বনধের ডাক দিয়েছে বিজেপি।

এদিকে এদিন সকাল থেকে বিজেপি কর্মী সমর্থকেরা বনধ সফল করতে শহরজুড়ে মোটরবাইক মিছিল করে। সরকারি বাস চলাচলে বাধা দেওয়ার অভিযোগ ওঠে বনধ সমর্থকদের বিরুদ্ধে। এরপরেই কড়া পদক্ষেপ নেওয়ার জন্য তৎপর হয় রায়গঞ্জ থানার পুলিশ। বিশাল পুলিশ বাহিনী শহরজুড়ে টহলদারি শুরু করে।

এদিকে এখনও পর্যন্ত রায়গঞ্জ শহরে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা গিয়েছে। বেলা বাড়ার সঙ্গে কিছু দোকান খুলেছে। তবে অধিকাংশ দোকানই বন্ধ রয়েছে। সরকারি বাস চলাচল করলেও বেসরকারি বাসের দেখা মেলেনি। অন্যদিকে, মালদহ জেলা তৃণমূল কার্যকারী সভাপতি দুলাল সরকার বলেন, এমনিতেই লকডাউন চলছে করোনা আতঙ্কে জেরবার মানুষ। বনধ বলে এই জেলায় কিছুই হয়নি। গোটা উত্তরবঙ্গ জুড়ে সর্বাত্ম ব্যর্থ বনধ, এমনটাই দাবি তৃণমূলের।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ