আবেগের আলিঙ্গন৷

পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান৷ সিএবি কর্তাদের মাথায় হাত, ১৯৯ কেজি গোলাপ বৃষ্টি তখন আর সম্ভব নয় ভেবে হাত কামড়াচ্ছেন তারা৷ কথা ছিল জমকালো অনুষ্ঠান হবে৷ আবেগের স্রোতে ভেসে যাবে ইডেন৷ কিন্তু দু’দিন আগেই যে এভাবে তাদের পরিকল্পনাকে ব্যর্থ করে ক্যারিবিয়ানরা অল আউট হয়ে যাবে, কে জানত? কেউ কি আন্দাজও করেছিল আগে? আন্দাজ করতে পারলে নিশ্চয় সিএবি কর্তারা অন্য ব্যবস্থা করতেন৷ ম্যাচ শেষে এই সব আশঙ্কা দূর হয়ে গেল একটা মুহূর্তে৷ সচিন-সৌরভের একটা আলিঙ্গনে, এই একটা দৃশ্যই যেন ইডেন টেস্টের ইউএসপি হয়ে থাকবে৷ ভুলিয়ে দেবে না হয়ে ওঠা পরিকল্পনাগুলো৷
ম্যাচ শেষ৷ পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান৷ পুরস্কার মঞ্চে তখন দাঁড়িয়ে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, সিএবি সভাপতি জগমোহন ডালমিয়া, কলকাতা পুলিশ কমিশনার সুরজিৎ পুরকায়স্থ ও প্রাক্তন ভারত অধিনায়ক সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়৷ রবি শাস্ত্রী ঘোষণার পর মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সচিনের হাতে তুলে দিলেন নিজের আঁকা একটি গাছের ছবি৷ তুলে দিলেন একটি বড় বেতের ঝুড়ি৷ যাঁর মধ্যেই ছিল একটি পাগড়ি৷ মমতা সেই পাগড়ি নিজে না পড়িয়ে পাশে দাঁড়ানো সৌরভকে ডেকে তুলে দিলেন তাঁর হাতে৷ সৌরভের হাতে পাগড়ি উঠতেই ফেটে পড়ল ইডেন৷ সবাই উঠে দাঁড়িয়ে একসঙ্গে হাততালি দিল৷ সচিনকে পাগড়ি পড়িয়েই সোজা বুকে জড়িয়ে ধরলেন সৌরভ৷ আর তাতেই যেন প্রাণ পেয়ে গেল প্রথম টেস্টের তৃতীয় দিন৷ কলকাতা পুলিশের পক্ষ থেকে একটি দুর্গার মূর্তি ও স্মারক তুলে দেওয়া হয় সচিনের হাতে৷ অবশ্য ম্যাচ খেলে উঠেই কলকাতা থেকে মুম্বই উড়ে গেলেন সচিন৷ এদিন ইডেন ছাড়ার ঘন্টা খানেকের মধ্যেই হোটেল থেকে লাগেজ নিয়ে এয়ারপোর্টের উদ্দেশ্যে বেড়িয়ে যান তিনি৷ এদিন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সচিনকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন আগামী দিনের জন্য৷ এর সঙ্গে তিনি এও উল্লেখ করেছেন বিশেষ করে সচিনের জন্যই তিনি এদিন ইডেনে এসেছিলেন৷ টেস্ট জয়ের জন্য গোটা ভারতীয় দলকেই শুভেচ্ছা জানিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷  sachin.jpg-F