Page 2

সাধারণের একেবারে সাধ্যের মধ্যে, এই স্মার্টফোন পাওয়া যাচ্ছে অনলাইনে

0

নয়াদিল্লি: ভারতের বাজারে এর আগেও একাধিক ফোন নিয়ে এসেছে oppo। যা যথেষ্ট জনপ্রিয় হয়েছে সকলের কাছে। তবে এবারে জানা গিয়েছে নতুন তথ্য। কিছুদিন আগেই ভারতে লঞ্চ করা হয়েছিল নতুন oppo a15। আর এবার থেকে অ্যামাজন থেকে এই ফোন কিনতে পারবেন গ্রাহকেরা। এমনকি লঞ্চ অফার হিসেবে এই ফোনের উপর রয়েছে আকর্ষণীয় অফার।

ভারতের বাজারে এই ফোনের দাম রাখা হয়েছে ১০৯৯০ টাকা। ভারতে আনা হয়েছে এটি একটি স্টোরেজের সঙ্গেই। ৩ জিবি র‍্যাম এবং ৩২ জিবি স্টোরেজের সঙ্গেই আনা হয়েছে এই ফোন। ফোনটি নীল এবং কালো রঙে পাওয়া যাবে বলে জানানো হয়েছে।

এছাড়া জানানো হয়েছে গ্রাহকদের জন্য এই ফোন কিনলে রয়েছে অতিরিক্ত সুবিধা। যার মধ্যে এইচডিএফসি ব্যাংকের কার্ড ব্যবহার করলে থাকছে ১০ শতাংশ ছাড়। এছাড়া এই ফোন খারাপ হলে ১ বছর পর্যন্ত গ্যারান্টি আছে। এই ফোনে রয়েছে ৬.৫২ ইঞ্চি ডিসপ্লে।

এছাড়া এই ফোনে রয়েছে এ আই ব্রাইটনেস। ফলে ফোন নিজে থেকে প্রয়োজন মত ব্রাইট নেস বাড়িয়ে বা কমিয়ে নিতে পারবে। এই ফোনে ব্যবহার করা হয়েছে octa core mediatek helio p35 processor। এছ্রা এই ফোনের জন্য রয়েছে উন্নত ক্যামেরা।

এছাড়া এই ফোনে সেলফির জন্য রয়েছে ৫ মেগাপিক্সেল ফ্রন্ট ক্যামেরা। এই ফোনে রয়েছে ৪২৩০ এমএএইচ ব্যাটারি। এতে রয়েছে ১০ ডবলু ফাস্ট চার্জের সুবিধা রয়েছে। এছাড়া এই ফোনে রয়েছে android 10 এর সুবিধা। এছাড়া এই ফোনে রয়েছে ফিঙ্গার প্রিন্ট সেন্সর এবং ফেস আনলকের সুবিওধাও।

বড় পদক্ষেপ মোদী সরকারের, জম্মু-কাশ্মীর-লাদাখে এবার কেনা যাবে জমি

0

শ্রীনগর : জমি আইনে বড় পরিবর্তন। এবার থেকে জম্মু কাশ্মীর ও লাদাখে যে কোনও ভারতীয় জমি কিনতে পারবেন সাধারণ জমি আইন মেনেই। কেন্দ্রের তরফ থেকে এই পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। কেন্দ্র এক বিবৃতির মারফত জানিয়েছে ইউনিয়ন টেরিটরি অফ জম্মু অ্যান্ড কাশ্মীর রিঅর্গানাইজেশন (অ্যাডপশন অফ সেন্ট্রাল ল) থার্ড অর্ডার,২০২০ অনুযায়ী জমি কিনতে পারবেন যে কোনও ভারতীয়। অর্থাৎ উপত্যকায় জমি কেনার ক্ষেত্রে আর কোনও বাধা রইল না।

কাশ্মীরের রূপে মুগ্ধ হয়ে সেখানে বসবাসের জন্য জমি কেনার ইচ্ছা মনে জাগে অনেক পর্যটকেরই। কিন্তু এতদিন মনের ইচ্ছে মনে চেপেই রাখতে হয়েছে, কার্যকর করতে পারেননি ৩৭০ ধারার নিয়মের কারণে। তবে, এবার ৩৭০ ধারা নিয়ে মোদী সরকারের ঘোষণার পরই সমস্যার সমাধান হয়ে গিয়েছে। এবার থেকে যেকোনও ভারতীয়ই কাশ্মীরে জমি-বাড়ি কিনতে পারবেন।

কেন্দ্র জানিয়েছে এই অর্ডার সংশোধন হওয়ার পর থেকেই কার্যকর করা হবে। আরও জানানো হয়েছে দেশের যে কোনও জায়গায় জমি কিনতে গেলে যে আইন মোতাবেক কাজ হয়, এখানেও তার অন্যথা হবে না। এই অর্ডারের ব্যাখ্যা হিসেবে কেন্দ্র জেবারেল ক্লসেস অ্যাক্ট, ১৮৯৭-এর উল্লেখ করেছে বলে খবর। ৩৭০ ধারা তুলে নেওয়ার পরেই জম্মু কাশ্মীরে জমি কেনা সহজ হয়েছিল। এবার আইন দিয়ে সেই প্রক্রিয়াকে সম্পূর্ণ করল কেন্দ্র।

২০১৯ সালে অগাষ্ট মাসে জম্মু কাশ্মীর রাজ্যকে দুটি কেন্দ্র শাসিত অঞ্চলে ভাগ করে মোদী সরকার। একটি জম্মু কাশ্মীর ও অপরটি লাদাখ অঞ্চল। ৬ই অগাষ্ট দিনের আলো ফুটতেই, রাজ্যসভায় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ জানিয়ে দেন, কাশ্মীর থেকে প্রত্যাহার করে নেওয়া হচ্ছে ৩৭০ ধারা। এরফলে পুনর্জন্ম হল কাশ্মীরের। জানানো হয়, জম্মু, কাশ্মীর, লাদাখের বাইরে যেকোনও জায়গার বাসিন্দাকে বিয়ে করতে পারবেন এখানকার মহিলারা। এর সঙ্গেই কাশ্মীরের বাইরের যেকোনও ভারতীয় জমি কিনতে পারবেন ভূস্বর্গে।

জম্মু-কাশ্মীর জুড়ে ৩৭০ ধারা প্রত্যাহারের পর দুই রাজ্য অর্থাৎ জম্মু-কাশ্মীর ও লাদাখ জুড়ে কার্ফু জারি করেছিল কেন্দ্র সরকার। সময় মত তা প্রত্যাহারও করে নেওয়া হয়। ৩৭০ ধারা প্রত্যাহারের আগের দিন অর্থাৎ ৫ই অগাষ্ট কাশ্মীরে ৩৭০ ধারা নিয়ে কথা উঠতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ বলেছিলেন, “আমি জম্মু ও কাশ্মীরের মানুষকে বলতে চাই, এই রাজ্যে ৩৭০ ধারা ও ৩৫ ধারা বিপুল পরিমাণে ক্ষতিসাধন করেছে। এই ধারাগুলির কারণে গণতন্ত্র কখনই পুরো দেশে কার্যকর হয় নি। রাজ্যে দুর্নীতি বৃদ্ধি পেয়েছে। উন্নয়নও থমকে দাঁড়িয়েছে।” এমনকী ওই রাজ্যে শিক্ষাব্যবস্থা, স্বাস্থ্য ও কর্মসংস্থানের কাঠামো ভেঙে পড়েছে।

করোনা মাঝে প্রথম ভোট, ১৯ নাকি ১০ লক্ষ চাকরি কোনদিকে বিহারববাসী

0

প্রসেনজিৎ চৌধুরী: নৌকরি! এই একটি শব্দে বিহারের নির্বাচন তুমুল আকর্ষক।

যুযুধান দুই শিবির শাসক এনডিএ ও বিরোধী মহাজোট বিপুল চাকরির অফার দিয়েছে নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি পত্রে। এনডিএ দিয়েছে ১৯ লক্ষ আর মহাজোটের দাবি ক্ষমতায় এলেই ১০ লক্ষ চাকরি পাকা।

সরকার ও বিরোধীদের দেওয়া চাকরি প্রতিশ্রুতির মিলিত সংখ্যা গিয়ে দাঁড়াচ্ছে ২৯ লক্ষে। সাম্প্রতিক সময়ে এত বড় মাপের চাকরি(নৌকরি) অফার আর কোনও রাজ্যের নির্বাচনী ঘোষণাপত্রে আসেনি। ফলে পুরো বিহার নির্বাচনের পরেই বিপুল পরিমাণ চাকরির ফুলঝুরি ফুটবে নাকি সবই প্রতিশ্রুতি হয়েই থাকবে তার উত্তর ‘বাদ মে দেখা যায়গা।’

নির্বাচনী ঘোষণা এনডিএ শরিক বিজেপির আরও দাবি ক্ষমতায় টিকে থাকলে করোনাভাইরাসের টিকা বিনামূল্যে সরবরাহ হবে। বিতর্কিত এই দাবিতে অনড় বিজেপি। যদিও অপর শরিক জেডিইউ এমন কোনও দাবি করেনি। মুখ্যমন্ত্রী নীতীশ কুমার এই বিষয়ে নীরব। বিরোধী মহাজোটের প্রধান শরিক আরজেডি সহ বাকিদের অভিযোগ মহামার্কিন মাঝে টিকা নিয়ে রাজনীতি করছে বিজেপি।

এছাড়াও বিহার বিধানসভা নির্বাচনে আরও একটি দিক গুরুত্বপূর্ণ। ভাবা গিয়েছিল করোনাভাইরাসের মহামারি চলায় এবারও শান্তিতেই হবে বিহারের ভোট। তবে যা ভাবা হয়, তা সবসময় হয় না। প্রথম দফার ভোটের আগেই বারে বারে রক্তাক্ত হয়ে পুরনো ছন্দে ফিরছে বিহার। পাটনা, আরা, মুঙ্গের, জামুই, পূর্ণিয়া, শিবহর জেলা রক্তাক্ত। জেডিইউ প্রার্থীদের খুন করা হয়েছে, কোথাও নির্দল নেতা খুন, মাওবাদীদের সঙ্গে কোবরা বাহিনির লড়াই এবং রাজনৈতিক সংঘর্ষ সবই দেখা গিয়েছে।

অন্তত গত কয়েকটি ভোটে বিহার তাক লাগিয়েছিল। নির্বাচন কমিশনের হাসি চওড়া হয়েছে তাতে। প্রশ্ন উঠছিল, বিহারের ভোট যদি শান্তিপূর্ণ হয় তাহলে পশ্চিমবঙ্গে কেন হয় না? এই প্রশ্নে বাংলার রাজনীতি বারে বারে সমালোচিত হয়। এবার বিহাহাকিম বিধানসভা ভোট ঘিরে কমিশন চিন্তায়।

বুধবার বিহার বিধানসভার মোট ২৪৩টি আসনের মধ্যে প্রথম দফায় ৭১টি আসনের ভোট। প্রস্তুত নির্বাচন কমিশন। পাটলিপুত্রের মহারণভূমিতে এনডিএ ও মহাজোট মুখোমুখি।

এনডিএ শিবিরে আছে জেডিইউ,বিজেপি ও হাম পার্টি। প্রধান বিরোধী মহাজোটে আছে আরজেডি, কংগ্রেস ও তিন বামদল (সিপিআই এমএল, সিপিআই, সিপিআইএম)। এছাড়াও আরও দুটি জোট রয়েছে নির্বাচনে। তবে মূল লড়াই এনডিএ এবং মহাজোটের।

বিহারের নির্বাচনের আগে করোনা হামলায় লকডাউন ও পরিযায়ী শ্রমিকদের ঘরে ফেরার মর্মান্তিক ছবি দেখেছিল গোটা দেশ তথা দুনিয়া। এই পরিযায়ী শ্রমিকদের বেশিরভাগ বিহারের। তাঁদের ক্ষোভ কতটা ভোটে প্রতিফলিত হয় তারই উত্তর মিলবে বিহারে।

আরও স্পষ্ট করলে হয়, মুখ্যমন্ত্রী নীতীশ কুমারের নেতৃত্বে টানা শাসন থাকবে নাকি বিরোধী মহাজোটের হাতে ক্ষমতা চলে যাবে তারই উত্তর দেবেন বিহারবাসী।

তিন দফার ভোট পর্বে মোট 7,29,27,396 জন বিহারবাসী গণতান্ত্রিক অধিকার প্রয়োগ করবেন।

বিজেপিকে ‘সত্যিকারের করোনা’ বলে আক্রমণ ফিরহাদের

0

স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: হাথরস কাণ্ডের প্রতিবাদে পথে নেমে বিজেপিকে অতিমারি বলেছিলেন তৃণমূল সুপ্রিমো তথা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এবার বিজেপিকে ‘সত্যিকারের করোনা’ বলে আক্রমণ করলেন রাজ্যের পুরমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম।

বিজয়া দশমীতে দলীয় কর্মীদের উদ্দেশে খোলা চিঠি দিয়েছিলেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। সেখানে তিনি লিখেছিলেন, লক্ষ্য এবার একুশের বিধানসভা। সবাইকে একজোট হয়ে লড়াই করে জয় ছিনিয়ে আনতে হবে। সমবেত কণ্ঠে সংকল্প গ্রহণ করার কথা বলে তিনি আহ্বান জানান, করব মোরা লড়ব মোরা, সোনার বাংলা গড়ব মোরা। রাজ্য সভাপতি হিসেবে তাঁর আবেদন, বাংলার স্বার্থে, বাঙালির স্বার্থে আবারও একবার নিজেদের উজাড় করে দিয়ে বিজেপিকে প্রমাণ করে দিতে হবে যে সদিচ্ছা থাকলে যে কোন অসাধ্য সাধন অতি ক্ষুদ্র বিষয়। তিনি বলেছেন, সমবেত কণ্ঠে সঙ্কল্প গ্রহণ করে বলতে হবে যে “করব মোরা লড়ব মোরা সোনার বাংলা গড়ব মোরা।”

বিষয়টি নিয়ে জবাব দিতে গিয়ে ফিরহাদ হাকিম বলেন, রাজনীতিতে সত্যিকারের ‘করোনা’ হল বিজেপি। এরা যত তাড়াতাড়ি শেষ হয়, তত বাংলার মঙ্গল। রাজ্যের মন্ত্রী বলেন, মা দুর্গা যেমন অসুরকে বধ করেছিলেন, তেমনই একদিন করোনাও বধ হবে। সেইসঙ্গে তিনি বলেন, দশমীতে দেবী দুর্গার কাছে তাঁর প্রার্থনা করোনা বধের মতোই বাংলা থেকে বিজেপিকে তাড়ান।

বিজেপির অস্ত্র পুজোর কড়া সমালোচনা করেছেন ফিরহাদ। তাঁর প্রশ্ন অস্ত্র পুজো কেন? পুজো করার পর কি তা দিয়ে কাউকে মারা হবে? মা দুর্গার কাছে থাকা অস্ত্র নিয়ে তাঁর প্রতিক্রিয়া, সেখানে যে অস্ত্র থাকে তা কৃত্রিম। বিজেপির বিরুদ্ধে অস্ত্র নিয়ে দাঙ্গা, হামলা ও মারামারির চেষ্টার অভিযোগ তিনি করেছেন। বিজেপির অস্ত্র পুজো নিয়ে প্রশাসন যে ব্যবস্থা নিয়েছে, তারও প্রশংসা করেছেন তিনি।

উল্লেখ্য, অস্ত্র পুজো করা নিয়ে দিলীপ ঘোষের যুক্তি, “শস্ত্র হচ্ছে শক্তির প্রতীক, দেশ-ধর্ম-সমাজ রক্ষার জন্য শস্ত্রের প্রয়োজন, শস্ত্রই আমাদের রক্ষা করে।”

দশমীর রাতে কোচবিহারে গুলিবিদ্ধ হয়ে মৃত্যু বিজেপি কর্মীর

0

স্টাফ রিপোর্টার, দিনহাটা: দশমীর রাতে এক ব্যক্তিকে গুলি করে খুনের ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়াল এলাকায়। ঘটনাটি ঘটেছে দিনহাটা মহকুমার সিতাই থানার অন্তর্গত ব্রহ্মত্তরচাতরা গ্রাম পঞ্চায়েতের ৫৩৮ সিঙ্গিমারি গ্রামে। মৃত ব্যক্তির নাম রুহিদাস বিশ্বাস(৫০)। মৃত ব্যক্তি বিজেপি কর্মী বলে স্থানীয় বাসিন্দারা জানিয়েছেন। রাজনৈতিক কারণ, নাকি ব্যক্তিগত শত্রুতা, কী কারণে খুন খতিয়ে দেখছে পুলিশ।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, সোমবার রাত সাড়ে বারোটা নাগাদ রুহিদাস বিশ্বাস তাঁর ঘরের বিছানায় বসে ছিলেন। দুর্গাপুজো উপলক্ষে তাঁর বাড়িতে অনুষ্ঠান চলছিল। হঠাৎ দুষ্কৃতীরা ঘরের দরজা থেকে তাকে লক্ষ্য করে গুলি চালিয়ে পালিয়ে যায়। তাঁর মাথা ভেদ করে গুলি বেরিয়ে যায়। তৎক্ষণাৎ পরিবারের লোকেরা তাকে দিনহাটা মহকুমা হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক তাকে মৃত বলে ঘোষণা করেন। মঙ্গলবার সকালে দেহ ময়নাতদন্তের জন্য কোচবিহার মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

ঘটনার খবর পেয়ে সিতাই থানার আইসি সৌর্যদীপ্ত ভট্টাচার্য, দিনহাটা থানার আইসি সঞ্চয় দত্ত ও দিনহাটার এসডিপিও মানবেন্দ্র দাস ঘটনাস্থলে পৌঁছান। পুলিশ গোটা ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে।

এদিকে, নবমীর রাতে তৃণমূল নেতা তথা পঞ্চায়েত সমিতির কর্মাধ্যক্ষকে খুনের চেষ্টার অভিযোগকে কেন্দ্র করে উত্তপ্ত হয়ে ওঠে দিনহাটা। জানা যায়, দিনহাটা ১ নম্বর ব্লকের (বি) ভিলেজ ২ গ্রাম পঞ্চায়েতের সাতকুড়া পঞ্চায়েত সমিতির কর্মাধ্যক্ষ ওই ব্যক্তির নাম মিঠুন রাজভর। নবমীর রাতে প্রতিমা দর্শনে বেরিয়েছিলেন তিনি।

একটু বেশি রাতেই বাড়ি ফিরছিলেন তিনি। স্থানীয়দের অভিযোগ, ফেরার সময় সাতকুড়া এলাকায় বিজেপি আশ্রিত দুষ্কৃতীরা চড়াও হয় তাঁর উপর। এলোপাথাড়ি কোপাতে শুরু করে মিঠুনবাবুকে। ঘাড়, গলা গুরুতর জখম হয় তাঁর। যন্ত্রণায় আর্তনাদ করতে শুরু করেন। চিৎকার শুনে স্থানীয়রা ছুটে গিয়ে দেখেন রক্তাক্ত অবস্থায় পড়ে রয়েছেন মিঠুনবাবু। তড়িঘড়ি তাঁকে নিয়ে যাওয়া হয় স্থানীয় হাসপাতালে। অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় পরে তাঁকে শিলিগুড়ি মেডিক্যাল কলেজে স্থানান্তরিত করা হয়েছে। বর্তমানে সেখানেই রয়েছেন তিনি। দিনহাটায় পরপর এধরণের ঘটনা ঘটায় রীতিমতো আতঙ্কের সৃষ্টি হয়েছে।

ভেন্টিলেশনে সৌমিত্র, সাড়া দেওয়ার ক্ষমতা কমছে ক্রমশ

0

কলকাতা: শারীরিক অবস্থার ক্রমশ অবনতি হচ্ছে অভিনেতা সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়ের। তিন সপ্তাহের বেশি সময় ধরে হাসপাতালে রয়েছেন তিনি।

হাসপাতালের তরফে জানা গিয়েছে, শারীরিক অবস্থার অবনতি হওয়ায় ভেন্টিলেশনে দিতে হয়েছে তাঁকে।

শেষ পাওয়া আপডেটে জানা গিয়েছে, ৪০ শতাংশ অক্সিজেন সাপোর্ট দিতে হচ্ছে তাঁকে। ৮৫ বছর বয়সী সৌমিত্রের শরীরে ক্রমশ কমছে হিমোগ্লোবিন, প্লেটলেট কাউন্ট। এমনকি অন্ত্র থেকে একটি রক্তক্ষরণ হচ্ছে বলেও জানিয়েছেন চিকিৎসকেরা।

সোমবার সকাল পর্যন্ত যা অবস্থা তাতে, ক্রিয়েটিনিন ও ইউরিয়া কমে যাচ্ছে।

চিকিৎসকেরা আরও জানিয়েছেন তাঁর সেকেন্ডারি নিউমোনিয়া হওয়ার সম্ভাবনা ক্রমশ বাড়ছে। তাই তাঁকে সোমবারই ভেন্টিলেশনে দেওয়া হয়।

সৌমিত্রবাবু করোনা মুক্ত হওয়ার পর আশা দেখছিলেন তাঁর গুণমুগ্ধরা। কিন্তু অষ্টমী থেকে ফের অবস্থার অবনতি৷ প্লেটলেট ক্রমশ কমছে অভিনেতার৷ রাইস টিউবের মাধ্যমেই খাওয়ানো হচ্ছে তাকে৷

কোভিড সেরে গেলেও মাঝেমধ্যে শরীরে অক্সিজেনের তারতম্য ঘটছে। ওঠানামা করছে রক্তচাপ। এরই মধ্যে সমস্যা বাড়িয়েছে মস্তিষ্কে সংক্রমণ বা কোভিড এনসেফ্যালোপ্যাথি। সৌমিত্রকে প্লাজমা থেরাপি দেওয়া হতে পারে বলেও হাসপাতাল সূত্রে জানানো হয়েছে। তবে চিকিৎসকদের আশা, তিনি দ্রুত সুস্থ হয়ে উঠবেন।

বয়স হয়েছে ৮৫ বছর। রয়েছে কো-মর্বিডিটি। বয়স এবং কো-মর্বিডিটির বিষয় দু’টি চিকিৎসার ক্ষেত্রে মাঝেমধ্যে বাধা হয়ে দাঁড়াচ্ছে।

গত ৬ অক্টোবর থেকে হাসপাতালে ভরতি আছেন ৮৫ বছরের অভিনেতা। মাঝে শারীরিক অবস্থার অবনতি হলেও ধীরে ধীরে সুস্থ হয়ে উঠছিলেন। গত সপ্তাহে তাঁর করোনাভাইরাস রিপোর্টও নেগেটিভ আসে। তবে তাঁর স্নায়বিক অবস্থা নিয়ে উত্‍কণ্ঠা ছিল। তারইমধ্যে আবারও উদ্বেগ বেড়েছে।

মাদ্রাসায় প্লাস্টিকের ব্যাগ থেকেই ভয়াবহ বিস্ফোরণ, মৃত ৭

0

ইসলামাবাদ: ভয়াবহ বিস্ফোরণে ফের কেঁপে উঠল পাকিস্তান। পেশোয়ারের মাদ্রাসায় বিস্ফোরণ। পড়ে থাকা একটি ব্যাগে বিস্ফোরক রাখা ছিল বলে জানা গিয়েছে। এই ঘটনায় মৃত্যু হয়েছে অন্তত ৭ জনের, আহত ৭০।

মঙ্গলবার সকালে পেশোয়ারের একটি কলোনিতে এই বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে। এক পুলিশ অফিসার জানিয়েছেন, মাদ্রাসায় একটি প্লাস্টিকের ব্যাগ রাখা ছিল। কেউ বা কারা ওই ব্যাগ রেখে যায়।

আহতদের সঙ্গে সঙ্গে লেডি রিডিং হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানেই তাঁদের চিকিৎসা চলছে। হাসপাতালের তরফে জানানো হয়েছে, মাদ্রাসায় বিস্ফোরণে এখনও পর্যন্ত সাতজনের মৃত্যু হয়েছে। জখম অন্তত ৭৪ জন। এঁদের মধ্যে ১৯ জন শিশু রয়েছে। তাঁদের মধ্যে কয়েকজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

যদিও পেশোয়ারের এক বর্ষীয়ান পুলিশ কর্তা ওয়াকার আজিম জানিয়েছেন, “অজ্ঞাত পরিচয় কয়েকজন দুষ্কৃতী মাদ্রাসার ভিতরে বিস্ফোরক রেখেছিল। তাতে চারজনের মৃত্যু হয়েছে। জখম ৩৬ জন।” পরে অবশ্য পেশোয়ারের এসপি মনসুর আমন জানান, “বিস্ফোরণে ৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। উদ্ধারকার্য চলছে।” কারা কী উদ্দেশ্যে এই বিস্ফোরণ ঘটালো তা নিয়ে তদন্তে নেমেছে পুলিশ। কোনও সন্ত্রাসবাদী গোষ্ঠী এখনও হামলার দায় স্বীকার করেনি।

মাদ্রাসা প্রাপ্তবয়স্ক পড়ুয়াদের জন্য। সেইসময় অনেকেই সেখানে পড়াশোনা করছিল। এই বিস্ফোরণে পাঁচ কেজি উন্নতমানের বিস্ফোরক ব্যবহার করা হয়েছে। কেউ ব্যাগে করে তা নিয়ে এসেছিল। রবিবার বালোচিস্তানে আরেকটি বিস্ফোরণে মারা গিয়েছেন ৩ জন। সেখানে শহরের অন্য অংশে বিরোধীদের একটি বিরাট সমাবেশের আগেই কড়া নিরাপত্তার মধ্যেই এই বিস্ফোরণ ঘটে। ২১ অক্টোবর করাচির গুলশন-ও-ইকবালে একটি চারতলা বাড়ি ধসিয়ে দেয়। তাতে মারা গিয়েছেন ৫ জন, জখম ২০ জন।

নির্বাচনের ঠিক আগেই গুলি চলল, দুর্গা বিসর্জনে মৃত্যু

0

মুঙ্গের: নির্বাচনের প্রথম দফার আগে বারবার গুলি চালনা ও খুনের ঘটনা ঘটছে বিহারে। বুধবার রাজ্যে প্রথম দফার ভোট। তার আগে গুলি চলল মুঙ্গেরে। দুর্গা বিসর্জন ঘিরে রাজনৈতিক আক্রোষের ফল বলেই মনে করা হচ্ছে। নিহত একজন। জখম আরও তিনজন।

এর আগে পাটনা, শিবহর, পূর্ণিয়া জেলায় কখনও প্রার্থীকে খুন করা হয়েছে, কোথাও রাজনৈতিক সংঘর্ষ ছড়িয়েছে।

সোমবার গভীর রাতে মুঙ্গেরে দুর্গা প্রতিমা বিসর্জন ঘিরে প্রবল উত্তেজনা তৈরি হয়। বিসর্জন ঘিরে দুপক্ষের মধ্যে বাদানুবাদ থেকে সংঘর্ষের জেরে গুলি চলতে শুরু করে। বুধবার নির্বাচন হবে মুঙ্গেরে। ফলে প্রশাসনের তরফে বিসর্জন ঘিরে পুলিশের উপস্থিতি ছিল বিশাল। তার মধ্যেই সংঘর্ষ ছড়ায়।

সংঘর্ষ থামাতে পুলিশ এলে গুলি চলে। ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয় একজনের। মৃতদেহ ঘিরে শুরু হয় আরও বিতর্ক। মৃতের আত্মীয়রা দাবি করেছেন পুলিশ গুলি চালিয়েছে। জখম আরও তিনজনকে রাতেই মুঙ্গের হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।

মঙ্গলবারের পরিস্থিতি থমথমে। এমনিতেই নির্বাচনে অত্যন্ত স্পর্শকাতর এলাকা হলো মুঙ্গের। প্রথম দফার আগেই সেখানে কড়া নিরাপত্তা থাকলেও বারে বারে উত্তেজনা ছড়াচ্ছে এই জেলায়। সম্প্রতি মুঙ্গের ও জামুই জেলার সীমান্তে মাওবাদী হামলার রুখতে বিরাট অভিযান চালায় পুলিশ ও কোবরা বাহিনি।

উৎসব মিটতেই আরও দামি হচ্ছে পেট্রোল-ডিজেল, চাপ বাড়বে মধ্যবিত্তের

0

নয়াদিল্লি: করোনা ও লকডাউনের জেরে দেশের অর্থনীতির হাল বেহাল। এমতাবস্থায় অর্থনীতির চাকা সচল করে তুলতে মরিয়া কেন্দ্র। এমতাবস্থায় উৎসবের মরসুম যেতে না যেতেই পেট্রোল ডিজেলের দাম বাড়ানোর কথা ভাবছে কেন্দ্র। সূত্র মারফৎ এখবর জানা যাচ্ছে।

জানা যাচ্ছে, পেট্রোল-ডিজেলে শুল্ক বাড়াতে চলেছে কেন্দ্রীয় সরকার। ৬ টাকা অবধি এই শুল্ক বাড়তে পারে বলে মনে করা হচ্ছে। অবশ্য চলতি বছরে লকডাউনের মধ্যেও পেট্রোলে লিটারে ১০ টাকা ও ডিজেলে ১৩ টাকা শুল্ক বাড়িয়েছে কেন্দ্র। এরমধ্যে আবারও দাম বাড়তে পারে।

আরও পড়ুন – সাফল্য মিলছে, অক্সফোর্ডের ভ্যাকসিন থেকে পাওয়া যাচ্ছে ইমিউন রেসপন্স

উল্লেখ্য, ভারতে অপরিশোধিত তেলের ৮২ শতাংশই আসে বাইরে থেকে। রিপোর্ট বলছে পেট্রোল-ডিজেলে ১ টাকা শুল্ক বাড়ালে সরকারের কোষাগারে ঢুকবে ১৩০০০-১৪০০০ কোটি টাকা।

বর্তমানে প্রতি লিটার পেট্রোলে সরকারের শুল্ক ৩১.৮৩ টাকা। ২০১৪ সালের মে মাসে এই শুল্ক ছিল মাত্র ৯.৪৮ টাকা। ৬ বছরে তা বেড়ে গিয়েছে প্রায় ২২ টাকা।

জঙ্গিরা আত্মসমর্পণ করুক, জীবনে ফেরার সুযোগ দিচ্ছে ভারতীয় সেনা : রিপোর্ট

0

নয়াদিল্লি : সমাজের মূল স্রোতে ফিরুক জঙ্গি দলে নাম লেখানো কাশ্মীরি যুবকরা। ভারতীয় সেনার কাছে আত্মসমর্পণ করুক তাঁরা। তাঁদের সামনে থাকবে সুস্থ জীবনে ফেরার সুযোগ। এক বিবৃতিতে এমনই জানিয়েছে ভারতীয় সেনা। সেনার পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে যেসব নব্য জঙ্গি দলে যোগ দিয়েছে, তাঁরা ফিরে আসুক।

সেনা সূত্রে খবর জম্মু কাশ্মীরে অনুপ্রবেশ করার জন্য সীমান্তের ওপারে তৈরি হয়েছে ২৫০ থেকে ৩০০ জঙ্গির দল। চিনার কর্পসের জিওসি লেফটেন্যান্ট জেনারেল বিএস রাজু জানান পাক অধিকৃত কাশ্মীর থেকে অনুপ্রবেশের আশংকা রয়েছে। তাঁরা তৈরি রয়েছে লঞ্চপ্যাডে। তবে ভারতীয় সেনা তাদের আরও একটা সুযোগ দিতে তৈরি।

আত্মসমর্পণ করলে জীবনে ফেরার সুযোগ থাকবে জঙ্গিদের কাছে, এমনই জানিয়েছে সেনা। মগজ ধোলাই করে যে সব জঙ্গিদের তৈরি করা হয়েছে, বা যারা সদ্য জঙ্গি সংগঠনে নাম লিখিয়েছে, এমন যুবকদের ফিরে আসতে অনুরোধ করেছে ভারতীয় সেনা।

বি এস রাজু বলেন কাশ্মীরের পরিস্থিতি বদলাচ্ছে। ধীরে ধীরে শান্ত হচ্ছে কাশ্মীর। মানুষ ঠিক আর ভুল বুঝতে পারছেন। কাশ্মীরি যুবকরাও নিজেদের জীবনযাত্রার মানোন্নয়নের জন্য পথ বেছে নিচ্ছেন। তবু কিছু যুবক ভুল পথে পা বাড়ানোয় সেনা তাদের সাহায্য করতে ইচ্ছুক।

দিন কয়েক আগেই দেখা যায়, যৌথ বাহিনীর অভিযানের সময় এক জঙ্গির হদিশ পায় সেনাবাহিনী। ভিডিওতে দেখা যায় বন্দুক হাতে এক সেনা অফিসারকে। কিছুক্ষণ পরে বাগানের ভিতর থেকে দু’হাত উপরে তুলে এগিয়ে আসতে দেখা যায় ওই জঙ্গিকে। সেই সময় সেনা অফিসারকে উপস্থিত বাকি সেনাকর্মীদের উদ্দেশে বলতে শোনা যায়, ‘‘কেউ গুলি চালাবে না।’’

জানা যায় ওই জঙ্গির নাম জাহাঙ্গির ভাট। সেনা অফিসার ওই জঙ্গিটিকে জল দেওয়ারও নির্দেশ দেন।

সেনার তরফে জানানো হয়, জাহাঙ্গির গত ১৩ অক্টোবর থেকে নিরুদ্দেশ ছিল। তার পরিবার তাকে খুঁজছিল। একই দিনে দু’টি একে-৪৭ নিয়ে এক স্পেশাল পুলিশ অফিসারও পলাতক হন। অবশেষে সেনার যৌথ অভিযানে সন্ধান মেলে জাহাঙ্গিরের। নিয়ম মেনে প্রথমে তাকে আত্মসমর্পণ করতে বলা হয়। জাহাঙ্গির আত্মসমর্পণ করতে রাজি হয়। দু’হাত তুলে এগিয়ে আসে সেনার দিকে।

তাজা সংবাদ শিরোনাম

এডুকেয়ার

x