শিরোনাম পড়েই চোখ কপালে তুলবেন না? একঘেয়ে যৌন জীবনকে আকর্ষণীয় করতে তুলতে এখন দম্পতিরা নানা উপায় অবলম্বন করে থাকেন। যেমন শয্যায় স্বামী-স্ত্রী সম্পর্কের অন্তরঙ্গ মুহূর্তে তৃতীয় পুরুষের উপস্থিতি। আবার স্ত্রীয়েরাও অনেক সময় নিজে থেকেই শয্যায় একসঙ্গে দুই পুরুষের উপস্থিতির কামনা করেন। এখন প্রশ্ন হল, এই ধরনের অভ্যাস কি ভালো লক্ষণ?

দ্য ইন্ডিপেনডেন্ট ইউকে-তে প্রকাশিত এক প্রতিবেদন বলছে, শুনতে এই কথাটা কারাপ লাগলেও ইদানিং বহু সুখী দম্পতিরা এই নেশায় মেতেছেন। শয্যায় স্বামীর সঙ্গে আর এক পুরুষের উপস্থিতি তাঁরা স্বেচ্ছায় মেনে নিচ্ছেন, সুখীও হচ্ছেন। অনেকেই আবার এতটা সাহসী না হতে পারলেও স্ত্রীর সঙ্গে শয্যায় আর এক পুরুষের উপস্থিতির কথা মুখে বলে ফ্যান্টাসিতেই চাহিদা মেটাচ্ছেন।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, একান্ত শয্যায় তৃতীয় ব্যক্তির উপস্থিতি প্রয়োজন পড়লে(অনেকসময় স্বামী-স্ত্রী পূর্ণাঙ্গ যৌন জীবনে সুখী না হতে পেরেও এই পন্থা বেছে নিচ্ছেন) নিজের পার্টনারের প্রতি সৎ থাকুন। নিজে যদি মনে করেন গোটা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করতে পারবেন ও মেনে নিতে পারবেন তবেই এরকম মতো সাহসী পদক্ষেপ নিন। দরকার প্রথমে প্রথমে শুধু ফ্যান্টাসিতে এরকম ভেবে দেখুন। তাতে তৃপ্তি পেলে তবেই বাস্তবে এর রূপায়ণ করার কথা ভাবুন।

Comments are closed.